জেলা জজ আদালত কুষ্টিয়া অফিস সহায়ক পদের লিখিত প্রশ্ন সমাধান-২০২৩

0
172

জেলা জজ আদালত কুষ্টিয়া অফিস সহায়ক

পদের লিখিত প্রশ্ন সমাধান-২০২৩

পদের নামঃ- অফিস সহায়ক

পরীক্ষার তারিখঃ- ০৬-০১-২০২৩

১। রচনা লিখুন (যে কোন ০১ (এ্রক) টি

ক) আমার শৈশব কাল। খ) একুশে ফেব্রুয়ারী।

২। শারীরিক অসুস্থতার জন্য ০১ (এক) দিনের ছুটি চেয়ে জেলা জজ বরাবর দরখাস্ত লিখুন ।

অথবা

ভাব-সম্প্রসারণ লিখুন: যে কোন ০১ (এক) টি

ক) পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি খ) দশের লাঠি একের বোঝা

০৬.০১.২০২৩

বরাবর

জেলা জজ মহোদয়

ফরিদপুর

বিষয়ঃ এক দিনের নৈমিত্তিক ছুটির জন্য আবেদন।

জনাব,

যথাবিহীত সম্মান প্রদর্শন পূর্বক নিবেদন এই যে, আমি নিম্নস্বাক্ষরকারী আপনার অধীনে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের কার্যালয়ে ব্যবস্থাপকের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছি। গত ০১.০১.২০২৩ থেকে ০২.০১.২০২৩ পর্যন্ত সময়ে শারীরিক অসুস্থতা জনিত কারণে একদিন অফিসে উপস্থিত হতে পারিনি।

অতএব, জনাব সমীপে আকুল আবেদন বিষয় সহানুভূতির মহিত আমাকে বাধিত করবেন।

বিনীতি নিবেদক

কমল বসু (১০১০৩)

অফিস সহায়ক

মোবাইলঃ ০১৭৭৮-৮৪৪৪৪

৩। ইংরেজীতে অনুবান করুন?

ক) গ্রামের নাম রসুলপুর =The name of the village is Rasulpur.

খ) আকাশের রং নীল = The sky is blue in colour.

গ) আমি যদি উড়তে পারতাম = I wish I could fly.

ঘ) আমি বাবা-মা কে ভালবাসি = I love my parents.

উ) আগামী কাল আমার চাকরীর পরীক্ষা = My job exam. will be held on tomorrow.

৪। নীচের প্রশ্ন গুলির উত্তর লিখুন:

ক) বাংলদেশের জাতীয় পতাকার ডিজাইনার এর নাম লিখুন?

উত্তরঃ- কামরুল হাসান।

খ) হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালীর নাম কি?

উত্তরঃ- শেখ মুজিবুর রহমান

গ) “টুঙ্গিপাড়া’ ও ‘রূপপুর’ কোন জেলায় অবস্থিত এবং কি জন্য বিখ্যাত?

উত্তরঃ- টুঙ্গিপাড়া – গোপালগঞ্জ জেলায় অবস্থিত । এখানে বঙ্গবন্ধুর সমাধি রয়েছে । তাই এটি বিখ্যাত ।

রূপপুর – পাবনায় অবস্থিত । ২ হাজার ৪ শত মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন বাংলাদেশে প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র হলো

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র। এটি স্থাপিত হচ্ছে পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার অন্তর্গত থাকশী ইউনিয়নের রূপপুর গ্রামে । এ পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি ২০২৩ সালে বিদ্যুৎ উৎপাদন কার্যক্রম শুরু করবে।

ঘ) মুজিবনগরের পূর্ব নাম কি এবং কোথায় অবস্থিত?

উত্তরঃ- মুজিবনগর .(পূর্বনাম: বৈদ্যনাথতলা), বাংলাদেশের মেহেরপুর জেলায় অবস্থিত এটি একটি ঐতিহাসিক স্থান। মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্রদানকারী বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকার যা ১০ এপ্রিল ১৯৭১ সালে গঠন করা হয়।

ঙ) হার্ডিঞ্জ ব্রীজ কত সালে নির্মিত হয় এবং কোন দুইটি জেলাকে সংযুক্ত করেছে?

উত্তরঃ- হার্ডিঞ্জ বিজ এর নির্মাণকাল ১৯০৯-১৯১৫। এটি বাংলাদেশের পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশি থেকে রেলসেতু । এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে দীর্ঘ রেলসেতু হিসেবে পরিচিত। পাবনা জেলার পাকশি রেলস্টেশনের দক্ষিণে পদ্মা নদীর উপর এই সেতুটি অবস্থিত। তৎকালীন ভাইসরয় লর্ড হার্ডিঞ্জ এর নাম অনুসারে এই সেতুর নামকরণ করা হয়।

৫। নীচের প্রশ্রগুলির উত্তর লিখুন ৪

ক) কুষ্টিয়া জেলার দুইটি দর্শনীয় স্থানের নাম লিখুন এবং কি জন্য বিখ্যাত?

উত্তরঃ- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কুঠিবাড়ীঃ-

শিলাইদহ বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলায় অবস্থিত একটি এলাকা । এখানে কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এর স্মৃতি বিজড়িত কুঠিবাড়ি অবস্থিত। রবীন্দ্রনাথ তাঁর যৌরনকালের একটি উল্লেখযোগ্য সময় এখানে কাটিয়েছেন। শিলাইদহ কুঠীবাড়ির পাশ দিয়ে বয়ে গেছে পদ্মা নদী।

বাউল সম্রাট লালন শাহের মাজারঃ-

আধ্যাত্মিক সাধক লালন শাহ’র কুমারখালীর ছেউড়িয়াতে আশ্রয় লাভ করেন এবং পরবর্তীকালে ছেউরিয়াতে মৃত্যুর পর তাঁর সমাধি স্থলেই এক মিলন ক্ষেত্র (আখড়া) গড়ে ওঠে । ফকির লালন শাহের শিষ্য এবং দেশ বিদেশের অগনিত বাউলকুল এই আখড়াতেই বিশেষ তিথিতে সমবেত হয়ে উত্সবে মেতে উঠে। এই মরমী লোককবি নিরক্ষর হয়েও অসংখ্য লোক সংগীত রচনা করেছেন । বাউল দর্শন এখন কেবল দেশে নয়, বিদেশের ভাবুকদেরও কৌতুহলের উদ্বেক করেছে। ১৯৬৩ সালে সেখানে তার বর্তমান মাজারটি নির্মাণ করা হয় এবং তা উদ্বোধন করেন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্ণর মোনায়েম খান। ২০০৪ সালে সেখানেই আধুনিক মানের অডিটোরিয়ামসহ একাডেমি ভবন নির্মাণ করা হয় ।

কুষ্টিয়া জেলার তিনজন বিখ্যাত ব্যক্তির নাম লিখুন।

* ফকির লালন শাহ

* মীর মশাররফ হোমেন

* বাঘা যতীন

গ) জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানকে কে, কত তারিখে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে ভূষিত করেন?

উত্তরঃ- তোফায়েল আহমেদ, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৯ সালে।

ঘ) অফিস সহায়ক এর কাজ কি?

অফিস সহায়ক এর কাজ:

১। অফিসের আসবাবপত্র এবং রেকর্ডসমুহের সুন্দরভাবে বিন্যাস সাধন করা এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা ।

২। অফিসের ফাইল এবং কাগজপত্র নির্দেশক্রমে একছান হইতে অন্যস্থানে কিংবা অন্য অফিসে স্থানান্তর করা ।

৩ । হালকা আলবাবপত্র অফিসের মধ্যে একন্থান হইতে অন্যস্থানে সরানো ।

৪। গোপন অথবা গুরুত্বপূর্ণ ফাইলসমূহ স্টিলের বাক্স বন্দী করিয়া নির্দেশক্রমে এক অফিস হইতে অন্য অফিসে নেয়া।

৫। কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণকে পানীয় জল পান করাবেন।

৬। তাহারা অফিসের সমন্ত মনিহারী ও অন্যান্য দ্রব্যাদি সংরক্ষণের জন্য দায়ী থাকিবেন।

৭। তাহারা তাদের জন্য নির্ধারিত ইউনিফর্ম পরিধান করিয়া অফিসে আসিবেন।

৮। তাহারা স্ব স্ব শাখা এবং কর্মকর্তার নির্দেশিত কাজ করিবেন।

৯। তাহারা দর্শণার্থী  এবং পাবলিকের সহিত ভদ্রতা বজায় রাখিয়া ব্যবহার করিবেন

১০। তাহারা কর্মকর্তার পক্ষে ব্যাংকে চেক জমা এবং টাকা তুলিবেন।

১১। তাহারা অফিস সময়ের ১৫ মিনিট পূর্বে অফিসে আসিবেন এবং সহকারী সচিব/প্রধান সহকারীর নিকট আগমনের রিপোর্ট করিবেন।

১২। তাহারা বিনা অনুমতিতে কোন সময় অফিস ত্যাগ করিবেন না।

Download From Google Drive

Download

আরো পড়ুনঃ-

Download From Dropbox

Download