অতিথির স্মৃতি গল্পের বহুনির্বাচনী, জ্ঞানমূলক ও সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর

0
48

অতিথির স্মৃতি গল্পের বহুনির্বাচনী, জ্ঞানমূলক

ও সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর

অতিথির স্মৃতি শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়

১. `অতিথির স্মৃতি’ গল্পটির লেখক কে?

(ক) বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়               (খ) বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়

(গ) শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় ✔                 (ঘ) মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়

২. ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পটি কোন গল্পটির ঈষৎ পরিমার্জি‘ত রূপ?

(ক) অতিথির কীর্তি                                   (খ) দেওঘরের স্মৃতি✔

(গ) অতিথির স্মৃতি                                    (ঘ) দেওঘরের কীর্তি

৩. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?

(ক) পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলার দেবানন্দপুর গ্রামে✔

(খ) বর্ধমান জেলার আসানসোল মহকুমার চুরুলিয়া গ্রামে

(গ) চব্বিশ পরগনা জেলার মুরাতিপুর গ্রামে

(ঘ) সাঁওতাল পরগনার দুমকা গ্রামে

৪. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের উপাধি কী?

(ক) অপরাজেয় কথাশিল্পী✔                      (খ) রূপসী বাংলার কবি

(গ) সাহিত্য সম্রাট                                   (ঘ) কাব্য বিশারদ

৫. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের উপন্যাস কোনগুলো?

(ক) পল্লীসমাজ, দেবদাস                           (খ) শ্রীকান্ত, গৃহদাহ

(গ) দেনাপাওনা, পথের দাবী                      (ঘ) সবগুলো✔

৬. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কোথা থেকে জগত্তারিণী স্বর্ণপদক লাভ করেন?

(ক) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়                              (খ) কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়✔

(গ) সোরবন বিশ্ববিদ্যালয়                           (ঘ) বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়

৭. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কোথা থেকে ডি-লিট ডিগ্রি লাভ করেন?

(ক) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়✔                          (খ) কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়

(গ) সোরবন বিশ্ববিদ্যালয়                           (ঘ) বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়

৮. ১৯০৭ সালে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের কোন উপন্যাস ’ভারতী’ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়?

(ক) দেনাপাওনা                                       (খ) বড়দিদি✔

(গ) পথের দাবি                                        (ঘ) শেষ প্রশ্ন

৯. কোথায় শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জীবনাবসান ঘটে?

(ক) ঢাকায়                                             (খ) দেওঘরে

(গ) ভাগলপুরে                                         (ঘ) কলকাতায়✔

১০. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কত থেকে কত সাল পর্যন্ত রেঙ্গুনে অবস্থান করেছিলেন?

(ক) ১৮৭৬-১৯৮৯ খ্রিষ্টাব্দ                           (খ) ১৯৯৪-১৯০৭ খ্রিষ্টাব্দ

(গ) ১৯০৩-১৯১৬ খ্রিষ্টাব্দ✔                        (ঘ) ১৯২৫-১৯৩৮ খ্রিষ্টাব্দ

১১. বাত ব্যাধিগ্রস্ত রোগীরা কখন ঘরে প্রবেশ করে?

(ক) সন্ধ্যার পূর্বে✔                                  (খ) সন্ধ্যার পরে

(গ) বিকেল বেলা                                      (ঘ) গোধূলি বেলা

১২. আতিথ্যের মর্যাদা লঙ্ঘন বলতে কী বোঝানো হয়েছে?

  1. কোনো তিথি না মেনে কারোর আগমনকে
  2. মাত্রাতিরিক্ত সময় আতিথেয়তা গ্রহণ করাকে

iii. অবাঞ্ছিত কোনো অতিথির অধিক সময় অবস্থানকে

নিচের কোনটি সঠিক?

(ক) i                                                     (খ) i ও ii

(গ) ii ও iii✔                                         (ঘ) i, ii ও iii

উদ্দীপকটি পড়ে ১৩ ও ১৪ নম্বর প্রশ্নের উত্তর দাও :

বাবা-মার আদরের দুই ছেলে রাহি ও মাহি এবার ক্লাস টু তে পড়ে। ওদের বাবা একদিন ছোট্ট একটি খাঁচায় একটি ময়না পাখি কিনে ওদের উপহার দেয়। সেই থেকে সারাক্ষণ দুই ভাই প্রতিযোগিতা করে পাখিটিকে খাবার দেয়া, পানি দেয়া, কথা বলা আর কথা শেখানোর আপ্রাণ চেষ্টা চালাতে থাকে। কিন্তু একদিন সকালে তারা দেখে ইঁদুর এসে রাতে পাখিটাকে মেরে ফেলেছে। সেই থেকে তাদের অঝোর ধারায় কান্না, কেউ আর থামাতেই পারে না। আজও সেই ময়নার কথা মনে হলে ওরা কেঁদে ওঠে।

১৩. ‘উদ্দীপকে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের যে ভাব প্রকাশ পেয়েছে তা হলো-

  1. পশু-পাখির সাথে মানুষের স্বাভাবিক সম্পর্ক
  2. পশু-পাখির সাথে মানুষের স্নেহপূর্ণ সম্পর্ক

iii. ভালোবাসার সিক্ত পশু-পাখির বিচ্ছেদ বেদনায় কাতরতা

নিচের কোনটি সঠিক?

(ক) i ও ii                                              (খ) i ও iii

(গ) ii ও iii✔                                         (ঘ) i, ii ও iii

১৪. উক্ত সাদৃশ্যপূর্ণ ভাবটি নিচের কোন বাক্যে প্রকাশ পেয়েছে?

(ক) বাড়ি ফিরে যাবার আগ্রহ মনের মধ্যে কোথাও খুঁজে পেলাম না✔

(খ) আতিথ্যের মর্যাদা লঙ্ঘন করে সে আরামে নিশ্চিত হয়ে বসে আছে

(গ) অতএব আমার অতিথি করে উপবাস

(ঘ) আজ তুই খেয়ে যাবি, না খেয়ে যাসনে বুঝলি

১৫. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কত সালে মৃত্যুবরণ করেন?

ক. ১৯৩৫                                               খ. ১৯৩৬

গ. ১৯৩৭                                                ঘ. ১৯৩৮✔

১৬. বাত ব্যাধিগ্রস্ত রোগীরা কখন ঘরে প্রবেশ করে?

ক. সন্ধ্যার পূর্বে✔                                    খ. সন্ধ্যার পরে

গ. বিকেল বেলা                                       ঘ. গোধূলি বেলা

১৭. আতিথ্যের মর্যাদা লঙ্ঘন বলতে কী বোঝানো হয়েছে?

  1. কোনো তিথি না মেনে কারোর আগমনকে
  2. মাত্রাতিরিক্ত সময় আতিথেয়তা গ্রহণ করাকে

iii. কোনো অতিথির অধিক সময় অবস্থানকে

নিচের কোনটি সঠিক?

ক. i                                                      খ. i ও ii

গ. ii ও iii✔                                          ঘ. i, ii ও iii

উদ্দীপকটি পড়ে ১৮ ও ১৯ নম্বর প্রশ্নের উত্তর দাও।

মা–বাবার আদরের দুই ছেলে রাহি ও মাহি এবার দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। ওদের বাবা একদিন ছোট্ট একটি খাঁচায় একটি ময়না পাখি কিনে ওদের উপহার দেয়। সেই থেকে সারাক্ষণ দুই ভাই প্রতিযোগিতা করে পাখিটিকে খাবার–পানি দেওয়া, কথা বলা আর কথা শেখানোর আপ্রাণ চেষ্টা চালাতে থাকে। কিন্তু একদিন সকালে দেখে ইঁদুর এসে রাতে পাখিটাকে মেরে ফেলেছে। সেই থেকে তাদের অঝোরে কান্না। আজও সেই ময়নার কথা মনে হলে ওরা কেঁদে ওঠে।১৪. উদ্দীপকে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের যে ভাব প্রকাশ পেয়েছে তা হলো—

১৮. উদ্দীপকে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের যে ভাব প্রকাশ পেয়েছে তা হলো—

i. পশু-পাখির সঙ্গে মানুষের স্বাভাবিক সম্পর্ক

ii. পশু-পাখির সঙ্গে স্নেহপূর্ণ সম্পর্ক

iii. ভালোবাসার সিক্ত পশু-পাখির বিচ্ছেদ বেদনায় কাতরতা

নিচের কোনটি সঠিক?

ক. i                                          খ. i ও ii

গ. ii ও iii✔                              ঘ. i, ii ও iii

১৯. উক্ত সাদৃশ্যপূর্ণ ভাবটি নিচের কোন বাক্যে প্রকাশ পেয়েছে?

ক. বাড়ি ফিরে যাবার আগ্রহ মনের মধ্যে কোথাও খুঁজে পেলাম না✔

খ. আতিথ্যের মর্যাদা লঙ্ঘন করে সে আরামে নিশ্চিত হয়ে বসে আছে

গ. অতএব আমার অতিথি করে উপবাস

ঘ. আজ তুই খেয়ে যাবি, না খেয়ে যাসনে বুঝলি

২০. ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পটি কোন গল্পটির ঈষৎ পরিমার্জিত রূপ?

ক. অতিথির কীর্তি                        খ. দেওঘরের স্মৃতি✔

গ. অতিথির স্মৃতি                          ঘ. দেওঘরের কীর্তি

২১. লেখক কেন দেওঘরে এসেছিলেন?

ক. গল্প লেখার জন্য                      খ. বায়ু পরিবর্তনের জন্য✔

গ. তীর্থ ভ্রমণের জন্য                    ঘ. সুচিকিৎসার জন্য

২২. লেখক কার আদেশে দেওঘরে এসেছিলেন?

ক. চিকিৎসকের✔                       খ. অতিথির

গ. বামুনঠাকুরের                          ঘ. চাকরদের

২৩. রাত্রি কখন থেকে একজন লোক গলাভাঙা সুরে ভজন শুরু করত?

ক. দুটো✔                                 খ. তিনটে

গ. চারটে                                   ঘ. পাঁচটা

২৪. নিচের কোনটি শোথ জাতীয় রোগ?

ক. বাত                                      খ. বেরিবেরি✔

গ. হাঁপানি                                  ঘ. গলগন্ড

সঠিক উত্তর

 

অতিথির স্মৃতি গল্পের জ্ঞানমূলক প্রশ্ন উত্তর

প্রশ্ন ১। কী দেখে লেখকের সত্যিকার ভাবনা ঘুচে গেল?

উত্তর: হলদে রঙের একজোড়া বেনে-বৌ পাখিকে আবার ফিরে আসতে দেখে লেখকের সত্যিকারের ভাবনা ঘুচে গেল ।

প্রশ্ন ২। অতিথির স্মৃতি’ গল্পে একটু দেরি করে আসত কোন পাখি?

উত্তর: একটু দেরি করে আসত হলদে একজোড়া বেনে-বৌ পাখি ।

প্রশ্ন ৩। অতিথির স্মৃতি’ গল্পে লেখকের কিসের ভাবনা ছিল?

উত্তর: ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে এক জোড়া বেনে-বৌ পাখিকে দুদিন না দেখে লেখকের ভাবনা হলো ব্যাধেরা বুঝি পাখি দুটিকে ধরে চালান করে দিয়েছে।

প্রশ্ন ৪। দেওঘরে লোকটি একঘেয়ে সুরে কী গান গাইত?

উত্তর: দেওঘরে লোকটি একঘেয়ে সুরে ভজন গাইত।

প্রশ্ন ৫। বেরিবেরির আসামি কারা?

উত্তর: পা ফুলো ফুলো অল্পবয়সী একদল মেয়ে বেরিবেরির আসামি।

প্রশ্ন ৬। অতিথির স্মৃতি’ গল্পে একটু দেরি করে আসত কোন পাখি?

উত্তর: ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে একটু দেরি করে আসত হলদে রঙের একজোড়া বেনে-বৌ পাখি।

প্রশ্ন ৭। ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে ট্রেন স্টেশন ছাড়তে আর কয় মিনিট দেরি?

উত্তর: ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে ট্রেন স্টেশন ছাড়তে আর এক মিনিট দেরি।

প্রশ্ন ৮। বেনে-বৌ পাখি কোন গাছে বসে হাজিরা হেঁকে যেত?

উত্তর: বেনে-বৌ পাখি ইউক্যালিপটাস গাছের সবচেয়ে উঁচু ডালটায় mবসে প্রত্যহ হাজিরা হেঁকে যেত।

প্রশ্ন ৯। বামুন ঠাকুরকে ডেকে লেখক কী বলেছিলেন?

উত্তর: লেখক বামুন ঠাকুরকে ডেকে বলেছিলেন, “ও আমার অতিথি, ওকে পেট ভরে খেতে দিও।”

প্রশ্ন ১০। ভজন’ অর্থ কী?

উত্তর: ভজন’ অর্থ ঈশ্বর বা দেবদেবীর স্তুতি বা মহিমাকীর্তন।

প্রশ্ন ১১। বড়দিদি’ উপন্যাস কোন পত্রিকায় প্রথম প্রকাশিত হয়?

উত্তর: বড়দিদি’ উপন্যাস ‘ভারতী’ পত্রিকায় প্রথম প্রকাশিত হয়।

প্রশ্ন ১২। পাডুর শব্দের অর্থ কী?

উত্তর: পাণ্ডুর অর্থ হলো ফ্যাকাশে।

প্রশ্ন ১৩। কত সালে বড়দিদি’ উপন্যাস প্রকাশিত হয়?

উত্তর: ১৯০৭ সালে বড় দিদি’ উপন্যাস প্রকাশিত হয় ।

প্রশ্ন ১৪। সবচেয়ে ভোরে ওঠে কোন পাখি?

উত্তর: সবচেয়ে ভোরে ওঠে দোয়েল পাখি ।

প্রশ্ন ১৫। ভজন শুৱ হয় কখন?

উত্তর: ভজন শুরু হয় রাত্রি তিনটে থেকে ।

প্রশ্ন ১৬। প্রাচীরের ধারে গাছটির নাম কী?

উত্তর: প্রাচীরের ধারের গাছটির নাম ইউক্যালিপটাস।

প্রশ্ন ১৭। কার আদেশে লেখক দেওঘরে এসেছিলেন?

উত্তর: চিকিৎসকের আদেশে লেখক দেওঘরে এসেছিলেন।

প্রশ্ন ১৮। সবচেয়ে ভোরে ওঠে কোন পাখি

উত্তর: সবচেয়ে ভোরে ওঠে দোয়েল পাখি।

প্রশ্ন ১৯। ট্রেন ছাড়তে আর কয় মিনিট দেরি?

উত্তর: ট্রেন ছাড়তে আর এক মিনিট দেরি।

প্রশ্ন ২০। লেখক দেওঘর গিয়েছিলেন কেন?

উত্তর: লেখক দেওঘরে গিয়েছিলেন বায়ু পরিবর্তনের জন্য।

প্রশ্ন ২১। ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পটির পূর্ণ নাম কী ছিল?

উত্তর: ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পটির পূর্ণ নাম ‘দেওঘরের স্মৃতি ছিল।

প্রশ্ন ২২। অন্ধকার শেষ না হতেই কোন পাখির গান আরড হয়?

উত্তর: অন্ধকার শেষ না হতেই দোয়েল পাখির গান আরম্ভ হয়।

প্রশ্ন ২৩। পাখি চালান দেওয়া কাদের ব্যবসায়?

উত্তর: পাখি চালান দেওয়া ব্যাধের ব্যবসায়।

প্রশ্ন ২৪। কাকে দেখে লেখকের সবচেয়ে বেশি দুঃখ হতো?

উত্তর: দরিদ্র ঘরের মেয়েটিকে।

প্রশ্ন ২৫। সন্ধ্যার পূর্বে কাদের ঘরে প্রবেশ করা প্রয়োজন?

উত্তর: বাতব্যাধিগ্রস্তদের সন্ধ্যার পূর্বে ঘরে প্রবেশ করা প্রয়োজন।

প্রশ্ন ২৬। “কী রে, যাবি আমার সঙ্গে?”- এ প্রশ্ন কার?

উত্তর: এ প্রশ্ন লেখকের।

প্রশ্ন ২৭। কার যৌবনে শক্তিসামর্থ্য ছিল?

উত্তর: কুকুরটার যৌবনে শক্তিসামর্থ্য ছিল।

প্রশ্ন ২৮। লেখক কাকে অতিথি হিসেবে ঘরে প্রবেশের আমন্ত্রণ জানান?

উত্তর: একটি কুকুরকে।

প্রশ্ন ২৯। আলো নিয়ে কে এসে উপস্থিত হলো?

উত্তর: আলো নিয়ে চাকর এসে উপস্থিত হলো।

প্রশ্ন ৩০। দেওঘরে প্রত্যহ অনেক কী ফেলনা যায়?

উত্তর: দেওঘরে প্রত্যহ অনেক খাবার ফেলনা যায় ।

প্রশ্ন ৩১। কে খাওয়া সম্পর্কে নির্বিকারচিত্ত?

উত্তর: মালিনী খাওয়া সম্পর্কে নির্বিকারচিত্ত।

প্রশ্ন ৩২। বেড়াতে বের হলে লেখকের পথসঙ্গী হয় কে?

উত্তর: বেড়াতে বের হলে লেখকের পথসঙ্গী হয় কুকুরটি।

প্রশ্ন ৩৩। মালিনী কাকে মেরে ধরে বের করে দিয়েছে?

উত্তর: মালিনী কুকুরটাকে মেরে ধরে বের করে দিয়েছে।

প্রশ্ন ৩৪। কাদের দোর ভােলার শব্দে অতিথি পালাল?

উত্তর: চাকরদের দোর খােলার শব্দে ‘অতিথি পালাল।

প্রশ্ন ৩৫। লেখককে কোথা থেকে বিদায় নিতে হলো?

উত্তর: লেখককে দেওঘর থেকে বিদায় নিতে হলো।

প্রশ্ন ৩৬। নানা ছলে লেখক দেওঘরে আরও কয়দিন দেরি করলেন?

উত্তর: নানা ছলে লেখক দেওঘরে আরও দুই দিন দেরি করলেন।

অতিথির স্মৃতি গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর

প্রশ্ন ১। বিকেলবেলা বন্ধুদের নিয়ে ফুটবল খেলছিল সাকিব। হঠাৎ তারা দেখে মাঠের একপ্রান্তে নর্দমায় একটি কুকুরছানা হাবুডুবু খাচ্ছে, প্রাণপণ চেষ্টা করছে নর্দমা থেকে উপরে উঠার। সাকিবরা সবাই মিলে ছানাটিকে তুলে পরিষ্কার করে। সাকিব পরম স্নেহে ছানাটিকে একটি শুকনো কাপড়ে জড়িয়ে বাড়িতে নিয়ে আসে। মৃতপ্রায় কুকুরছানাটি যেন প্রাণ ফিরে পায়। সাকিব তার নাম দেয় ডন। কিন্তু বাড়ির কাজের লোক আয়নাল মিয়া ছানাটিকে খেতে দিতে এবং পরিষ্কার করতে ভীষণ বিরক্ত। মাঝে মাঝে তার ইচ্ছে হয়— ছানাটিকে দূরে কোথাও ফেলে দিয়ে আসতে। আজ সাকিব বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছে, আর ডনকে মনে হয় তাদের পরিবারেরই একজন।

ক. দেওঘরে বেড়াতে আসা পীড়িতদের মধ্যে কাদের সংখ্যাই বেশি ছিল?

খ. আতিথ্যের মর্যাদা লজ্জন’ বলতে কী বোঝানো হয়েছে?

গ. উদ্দীপকের আয়নালমিয়ার মাধ্যমে ‘অতিথির স্মৃতি গল্পের যে দিকটির ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে তা ব্যাখ্যা করো।

ঘ, “উদ্দীপকের সাকিব যেন অতিথির স্মৃতি। লেখকের অনুভূতিরই ধারক’- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ

১ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক। দেওঘরে বেড়াতে আসা পীড়িতদের মধ্যে মেয়েদের সংখ্যাই বেশি ছিল।

খ। ‘আতিথ্যের মর্যাদা লজ্জন’ বলতে বাড়িতে অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে অতিথির দীর্ঘ সময় অবস্থান করাকে বোঝানো হয়েছে।

কুকুরটির সঙ্গে লেখকের সখ্য হওয়ার পরের দিন কুকুরটি লেখকের নিমন্ত্রণ রক্ষা করে। কিন্তু এরপরও কুকুরটি ওই বাড়িতে অবস্থান করে। বাড়িতে অতিথির এরূপ দীর্ঘ সময় অবস্থান মূলত আতিথ্যের লঙ্ন। সাধারণ বিচারে কুকুরটি এ মর্যাদা লঙ্ন করেছে। তাই বলা যায়, ‘আতিথ্যের মর্যাদা লজ্ঞান’ বলতে বাড়িতে কুকুরটির এই দীর্ঘসময় অবস্থান করাকেই বোঝানো হয়েছে।

গ. উদ্দীপকের আয়নাল মিয়ার মাধ্যমে অতিথির স্মৃতি’ গল্পের মালি-বৌয়ের মাঝে বিদ্যমান প্রাণীর প্রতি অবহেলার দিকটির ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে উল্লিখিত মালি-বৌ কুকুরটিকে সহ্য করতে পারত না। নিজের খাবারে কুকুরটি ভাগ বসিয়েছে মনে করে সে তাকে তাড়িয়ে দিত। লেখকের বাড়িতে প্রতিদিন অনেক খাবার বেঁচে গেলেও মালি-বৌ লেখকের অতিথিরূপী কুকুরকে সেখান থেকে কিছু অংশ খেতে না দিয়ে বরং তাকে প্রায়ই তাড়িয়ে দিত। উদ্দীপকের আয়নাল মিয়ার মাঝেও আমরা প্রাণীর প্রতি অবহেলার দিকটি লক্ষ করি। আয়নাল মিয়া সাকিবদের বাড়ির কাজের লােক। খেলতে গিয়ে সাকিব একটি বিপদগ্রস্ত কুকুরছানাকে উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে আসে। কিন্তু আয়নাল মিয়া কুকুরছানাটির প্রতি যত্ন করতে ও তাকে খেতে দিতে বিরক্তবোধ করে। মাঝে মাঝে তার ইচ্ছে কুকুরটিকে দূরে কোথাও ফেলে দিয়ে আসতে। আয়নাল মিয়ার এই মানসিকতা ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের মালি-বৌয়ের মাঝে বিদ্যমান প্রাণীর প্রতি অবহেলার দিকটিরই ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।

ঘ. উদ্দীপকের সাকিবের মাঝে প্রাণীর প্রতি সহানুভূতিশীল হওয়ার দিকটি প্রকাশ পাওয়ায় সাকিবকে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের অনুভূতিরই ধারক বলা যায়।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের মাঝে প্রাণীর প্রতি সহানুভূতিশীল মানসিকতার প্রকাশ ঘটেছে। রাস্তার একটি কুকুরকে তিনি অতিথির মর্যাদা দান করেন। একসময় কুকুরটির প্রতি তিনি মায়ার বন্ধনে জড়িয়ে পড়েন। কুকুরটির সঙ্গে অসুস্থ লেখকের কয়েকদিনের পরিচয়ের মধ্য দিয়ে গড়ে ওঠে এক মমত্বের সম্পর্ক।

উদ্দীপকের সাকিবের মাঝেও আমরা প্রাণীর প্রতিসহানুভূতিশীল হওয়ার দিকটি লক্ষ করি। সে একদিন বিকেলবেলা ফুটবল খেলতে গিয়ে এক বিপদগ্রস্ত কুকুরছানাকে পরম যত্নে বাড়িতে নিয়ে আসে। একসময় কুকুরটিকে সে তার পরিবারের অবিচ্ছেদ্য অংশ মনে করে।

উপযুক্ত আলোচনার প্রেক্ষাপটে বলা যায়, উদ্দীপকের সাকিব এবং ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখক উভয়ের মাঝেই আমরা প্রাণীর প্রতি মমত্ববোধের দিকটি দেখতে পাই। গল্পে লেখক যেমন একটি রাস্তার কুকুরকে অতিথির মর্যাদা দেন এবং মায়ায় জড়িয়ে পড়েন, তেমনি উদ্দীপকের সাকিবও বিপদগ্রস্ত কুকুরকে দেখে এক অজানা মায়ার জড়িয়ে পড়ে। উভয়ের মাঝে আমরা একই অনুভূতির প্রকাশ দেখতে পাই। তাই বলা যায়, “উদ্দীপকের সাকিব যেন ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের অনুভূতিরই ধারক।”- মন্তব্যটি যথার্থ।

প্রশ্ন ২। একদিন সিদ্ধার্থ নামে এক ব্যক্তি বিশাল অরণ্যে বসেছিলেন। এমন সময় একটি তীরবিদ্ধ বুনোহাঁস তার পায়ের কাছে এসে পড়ল। বুনোহাঁসটির ক্ষতস্থান থেকে দরদর করে রক্ত ঝরছিল। তা দেখে সিদ্ধার্থের মন করুণায় বিগলিত হলো। তিনি পরমস্নেহে বুনো হাঁসটির দেহ থেকে তীরটি খুলে গভীর সহানুভূতির সাথে তার পরিচর্যা করতে লাগলেন। পরে সুস্থ করে তিনি, হাঁসটিকে আকাশে উড়িয়ে দিলেন।

ক. প্রাচীরের ধারের গাছটির নাম কী ছিল?

খ. চাকররা বাড়তি খাবারগুলো মালিনীকে দিতে বেশি আগ্রহী কেন?

গ. উদ্দীপকে ‘বুনোহাঁসটির প্রতি সিদ্ধার্থের সেবায় অতিথির স্মৃতি’ গল্পের যে দিকটি প্রকাশ পেয়েছে তা ব্যাখ্যা করো।

ঘ. উদ্দীপকের সিদ্ধার্থের অনুভূতি আর ‘অতিথির স্মৃতি গল্পের লেখকের অনুভূতির একই ধারায় উৎসারিত” – বিশ্লেষণ করো।

২ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক। প্রাচীরের ধারের গাছটির নাম ছিল ইউক্যালিপটাস।

খ। মালিনীর বয়স কম, দেখতে ভালো হওয়ার কারণে চাকররা বাড়তি খাবারগুলো মালিনীকে দিতে বেশি আগ্রহী।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে লেখকের অতিথি ছিল একটি কুকুর। বাড়ির অবশিষ্ট খাবার লেখকের অতিথি কুকুরকে দেওয়ার নির্দেশ থাকলেও চাকররা তা করত না। চাকরদের দরদ মালিনীর প্রতি বেশি ছিল। কেননা, তার বয়স ছিল কম সে দেখতে ভালো ছিল এবং খাওয়া সম্বন্ধে নির্বিকারচিত্ত। তাই চাকররা বাড়তি খাবারগুলো মালিনীকে দিতে বেশি আগ্রহী ছিল।

গ। উদ্দীপকে বুনোহাঁসের প্রতি সিদ্ধার্থের সেবায় ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে অতিথি কুকুরের প্রতি লেখকের স্নেহপ্রীতি প্রকাশের দিকটি প্রকাশ পেয়েছে।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে একটি কুকুরের সঙ্গে লেখকের কদিনের পরিচয়ে মমতার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কুকুরটির প্রতি লেখকের স্নেহপ্রীতির প্রকাশ নানাভাবে লক্ষ করা যায়। এমনকি দেওঘর থেকে বিদায় নেওয়ার সময় লেখক প্রাণীটির কথা ভেবে ব্যথিত হন।

উদ্দীপকে সিদ্ধার্থের মাঝে বুনোহাঁসের প্রতি ভালোবাসা লক্ষ্য করা যায় । বিশাল অরণ্যে অবস্থানকালে একটি তীরবিদ্ধ বুনোহাঁস দেখতে পেয়ে গভীর সহানুভূতির সাথে তার পরিচর্যা করে। এমনকি হাঁসটিকে সুস্থ করে আকাশে উড়িয়ে দেয়। যেমনটি দেখা যায়, আলোচ্য গল্পের লেখকের আচরণে। গল্পের কুকুরটিকে তিনি অতিথির মর্যাদায় বাড়িতে থাকতে দেন এবং অবশিষ্ট খাবার খেতে দেন। কুকুরটির প্রতি আন্তরিক ভালোবাসা ও মমতা অনুভব করেন। ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে প্রাণীর প্রতি লেখকের সহানুভূতির দিকটি উদ্দীপকের বুনোহাঁসের প্রতি সিদ্ধার্থের সেবার মধ্যে প্রকাশ পেয়েছে।

ঘ। অবলা প্রাণীর প্রতি ভালোবাসার দিক থেকে উদ্দীপকের সিদ্ধার্থের অনুভূতির এবং ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে লেখকের অনুভূতি একই ধারায় উৎসারিত।

অতিথির স্মৃতি’ গল্পে মানবেতর একটি প্রাণীর সঙ্গে একজন মানুষের গভীর সম্পর্ক রচিত হয়েছে। লেখক দেওঘরে এসেছিলেন বায়ু পরিবর্তনের জন্য। এখানে একটি পথের কুকুরের সাথে তার সখ্য গড়ে ওঠে। কুকুরটিকে তিনি পরম মমতায় আপন করে নেন। উদ্দীপকে বর্ণিত সিদ্ধার্থ অরণ্যে বসে থাকাকালে একটি তীরবিদ্ধ বুনোহাঁস দেখতে পায়। হাঁসটি ভীষণভাবে আহত ছিল। এ অবস্থায় সিদ্ধার্থের মাঝে হাঁসটিকে সেবা করার মনোবৃত্তি জেগে ওঠে। হাঁসটিকে পরম যত্নে সুস্থ করে তোলে এবং আকাশে উড়িয়ে দেয় পরমুহূর্তে। এভাবেই অবলা একটি প্রাণীর প্রতি সিদ্ধার্থের ভালোবাসা প্রকাশ পেয়েছে।

উদ্দীপকে সিদ্ধার্থের অনভূতি এবং ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে লেখকের অনুভূতি একই। কেননা, অবলা প্রাণীর প্রতি উভয়ের ভালোবাসা প্রকাশ পেয়েছে। ভালোবাসার তাগিদ থেকেই পথের কুকুরের সাথে লেখকের সখ্য গড়ে ওঠে। কুকুরটিকে তিনি অতিথির মর্যাদায় বাড়িতে নিয়ে আসেন এবং খাবার খেতে দেন। উদ্দীপকের সিদ্ধার্থও আহত হাঁসের পরিচর্যা করে তাকে সুস্থ করে তোলেন। নিরীহ প্রাণীর প্রতি ভালোবাসা প্রকাশের দিক থেকে লেখক ও উদ্দীপকের সিদ্ধার্থের অনুভূতি অভিন্ন। কেননা, উভয়েই পরম প্রীতিতে প্রাণীর সাথে হৃদ্যতার সম্পর্ক গড়ে তুলে। এসব দিক থেকে এ কথা বলতে পারি যে, উদ্দীপকের সিদ্ধার্থের অনুভূতি আর অতিথির স্মৃতি’ গল্পে লেখকের অনুভূতি একই ধারায় উৎসারিত।

প্রশ্ন ৩। পোষা টিয়া মিঠুকে নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটায় অমল। দুটি প্রাণীতে মম তার মাখামাখি । বিদ্যালয়ে গিয়েও মিঠুকে নিয়ে তার ভাবনার অন্ত নেই। বাড়ি এসে নিজ হাতে তাকে খাওয়ায়। মিঠুও তার কাঁধে বসে আনন্দে গেয়ে যায়। ই-টি-ই…।

ক. ‘বেরিবেরি’ কী?

খ. অতিথি কিছুতে ভেতরে ঢোকার ভরসা পেল না কেন? ব্যাখ্যা করো।

গ. উদ্দীপকের সঙ্গে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের সাদৃশ্য কোথায়? ব্যাখ্যা করো।

ঘ. উদ্দীপকের অমল এবং ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের অনুভূতি একই ধারায় উৎসারিত।”- উক্তিটির যথার্থতা বিচার করাে।

৩ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক। ‘বেরিবেরি’ শোথ জাতীয় রোগ, যাতে হাত-পা ফুলে যায় ।

খ। নতুন পরিচয়ের সংকোচ কাটাতে না পেরে অতিথি ভেতরে ঢোকার ভরসা পেল না ।

লেখক চিকিৎসকের পরামর্শে কিছুদিনের জন্য দেওঘরে গিয়েছিলেন। সেখানে পথ চলতে গিয়ে একটি কুকুরের সঙ্গে তার পরিচয় ঘটে। পথে লেখক প্রাণীটির সঙ্গে অনেক কথা বলেন, সেও লেজ নেড়ে নেড়ে জবাব দেয়। কিন্তু বাড়ি পৌছে গেট খুলে ভেতরে ডাকলে কুকুরটি দাঁড়িয়ে থাকে, ভেতরে ঢুকতে সাহস পায়। মূলত অচেনা পরিবেশে ভয় ও সংকোচ থেকেই তার সে সাহস হয় না।

গ| পোষা প্রাণীর সাথে মানুষের ভালোবাসার সম্পর্কের দিক দিয়ে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের সাথে উদ্দীপকের সাদৃশ্য রয়েছে।

মানুষ যদি অবলা প্রাণীকে ভালোবাসে এবং যত্ন করে তাহলে এ প্রাণীর কাছ থেকেও সে একই আচরণ পেতে পারে। বিভিন্ন কাজের সময় পোষা প্রাণী পাশে থেকে একজন মানুষের মতোই আনন্দ দেয়।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে অসুস্থ লেখক দেওঘরে বেড়াতে গেলে একটি কুকুরের সাথে তার সখ্য গড়ে ওঠে। এ প্রাণীটি যেমন লেখকের মনে আনন্দ দেয় তেমনি উদ্দীপকেও অমল একটি টিয়া পাখিকে যত্ন করে মনে নির্মল আনন্দ খুঁজে পায়। মিঠুর কাঁধের ওপর টিয়া পাখি বসে গানের সুর তোলে। এটি যেন ভালোবাসার প্রতিদান দেওয়ার উদাহরণ। একইভাবে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে লেজ নেড়ে কুকুরটি লেখকের সাথে ভাব বিনিময়ে করে। সুতরাং ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের মানুষ ও প্রাণীর মমত্ববোধের দিকটিই সাদৃশ্যপূর্ণভাবে উদ্দীপকে ফুটে উঠেছে।

ঘ। উদ্দীপকে অমল ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের জীবপ্রেম তাদের অভিন্ন মানবিক অনুভূতিকে প্রকাশ করে।

বাড়ির অবলা প্রাণী তুচ্ছ জীব হলেও এদের প্রতি মমত্ববোধের মন সবার থাকে না। উৎকৃষ্ট মননের একজন মানুষ এসব তুচ্ছ প্রাণীর মধ্যেও আনন্দ খুঁজে নিতে পারে।

উদ্দীপকে অমল ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের অনুভূতির মধ্যে এ ধরনের উৎকৃষ্ট মানসিকতাই প্রকাশ পায়। আলোচ্য গল্পে দেখা যায়, লেখক অবলা প্রাণীর যত্ন নেওয়ার মাঝে মনের আনন্দ খুঁজে পায়। এর মাধ্যমে সে আনন্দ ছাড়া অন্য কিছু খোঁজে না। একইভাবে পোষা প্রাণীর যত্ন নিতে গিয়ে অমলের ভাবনার অন্ত থাকে না। এটি তার নির্মল ভালবাসারই প্রকাশ যাতে কোনো প্রতিদানের প্রত্যাশা তার নেই। জীবের প্রতি নির্মল ভালবাসার মানসিকতা থাকার কারণেই গল্পের লেখক ও উদ্দীপকের বিমলের আচরণে জীবপ্রেমের অনুভূতি প্রকাশ পেয়েছে। উপযুক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে বলা যায়, উদ্দীপকের বিমল ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের জীবপ্রেম তাদের অনুভূতিকে অভিন্ন রূপে তুলে ধরেছে।

প্রশ্ন ৪। মিসেস নুরুন্নাহার একটি সড়ক দুর্ঘটনায় স্বামী ও ছােট পুত্রকে হারিয়ে, ইদানীং খুবই বিষগ্ন থাকেন। ডাক্তারের পরামর্শে বিষণ্ণতা কাটিয়ে ওঠার জন্য তার বড় ছেলে তাকে কক্সবাজারে বেড়াতে নিয়ে আসে। মিসেস নুরুন্নাহার হোটেলের জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে থাকেন জেলেদের মাছ ধরা দেখেন, সমুদ্রের বিশালতা, গাংচিল আর নানা বয়সী পর্যটকদের দেখে তার সময় কাটে।

ক. এক জোড়া বেনে-বৌ পাখি কোন গাছের ডালে বসত?

খ. অল্প বয়সী একদল মেয়েকে বেরিবেরির আসামি বলা হয়েছে কেনো?

গ. উদ্দীপকের মিসেস নুরুন্নাহারের সাথে অতিথির স্মৃতি গল্পের লেখকের কোন দিক থেকে সাদৃশ্য রয়েছে? ব্যাখ্যা করো।

ঘ. উদ্দীপকের উল্লিখিত দিকটি ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের মূল উপজীব্য নয়— মন্তব্যটির যথার্থতা নিরূপণ করো।

৪ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক। এক জোড়া বেনে-বৌ পাখি ইউক্যালিপটাস গাছের ডালে বসত।

খ। ফুলে যাওয়া পা ঢাকার প্রাণান্ত চেষ্টা দেখে বেরিবেরি রোগে আক্রান্ত একদল মেয়েকে লেখক ‘বেরিবেরির আসামি’ বলেছেন।

বেরিবেরি হলো শোথ জাতীয় রোগ। এ রোগ হলে হাত-পা ফুলে যায়। লেখকের বাড়ির সামনে দিয়ে বেরিবেরিতে আক্রান্ত একদল অল্পবয়সী মেয়ে যাতায়াত করত। ফোলা পায়ের লজ্জা ঢাকতে গরমের দিনেও তারা আঁটসাট করে মোজা পড়ত। তাদের এমন দুর্দশার কথা বোঝাতেই আলোচ্য গল্পে তাদের ‘বেরিবেরির আসামি’ বলা হয়েছে।

গ। ডাক্তারের পরামর্শে হাওয়া বদল করতে আসার দিক থেকে উদ্দীপকের মিসেস নুরুন্নাহারের সাথে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের সাদৃশ্য রয়েছে।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে লেখকের দেওঘর ভ্রমণকালীন এক কুকুরের সাথে তার সখ্যতার কাহিনী বর্ণিত হয়েছে। গল্পে ডাক্তারের পরামর্শে সুস্থতা লাভের উদ্দেশ্যে লেখক দেওঘরে যান এবং সেখানে অবস্থান করেন। আলোচ্য উদ্দীপকের মিসেস নুরুন্নাহারের ভ্রমণও ডাক্তারের পরামর্শ মতোই হয়েছিল। উদ্দীপনে মিসেস নুরুন্নাহার এক বেদনাদায়ক ঘটনার সম্মুখীন হন। তার চোখের সামনে এক মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় স্বামী ও ছোট ছেলের মৃত্যু হয়। ঘটনার আকস্মিকতায় হতবাক হয়ে যান তিনি। অকালে স্বামী ও পুত্র হারানোর শোক কিছুতেই ভুলতে পারছিলেন না তিনি। আর তাই মন ভালো করতে ডাক্তারের পরামর্শ মতো তার বড় ছেলে তাকে কক্সবাজার নিয়ে আসে। একইভাবে আলোচ্য গল্পের লেখকও সুস্থতা লাভের উদ্দেশ্যে ডাক্তারের পরামর্শ মেনেই দেওঘরে, বেড়াতে আসেন। এদিক থেকে উদ্দীপকের নুরুন্নাহারের সাথে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের ভ্রমণের সাদৃশ্য রয়েছে।

ঘ। ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে মানবেতর একটি প্রাণীর প্রতি লেখকের গভীর মমত্ব ও সহানুভূতির পরিচয় ফুটে উঠেছে।

আলোচ্য গল্পের লেখক সুস্থতা লাভের উদ্দেশ্যে দেওঘর এসেছিলেন। একদিন বাড়ি ফেরার পথে একটি কুকুরের সান্নিধ্যে এসে কুকুরটি সাথে সখ্য গড়ে ওঠে তার। কুকুরটিকে তিনি অতিথির মর্যাদা দেন এবং নানাভাবে যত্ন করেন। প্রতিদানে কুকুরটিও তার প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে। তাই বাড়ি ফেরার সময় কুকুরটিকে ছেড়ে যাওয়ার যন্ত্রণায় দগ্ধ হন লেখক।

উদ্দীপকে মিসেস নুরুন্নাহারের জীবনের এক দুঃখময় ঘটনার অবতারণা করা হয়েছে। চোখের সামনে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় স্বামী ও ছোট ছেলেকে হারিয়ে ভেঙে পড়েন তিনি। পরিস্থিতি বিবেচনায় ডাক্তার তাকে ঘুরে আসার পরামর্শ দেন। এ কারণে বড় ছেলের সঙ্গে কক্সবাজারে বেড়াতে আসেন তিনি। কিন্তু সেখানেও তার বেদনাবিধুর মন সারাক্ষণ উদাসীন থাকে।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পটি লেখকের সঙ্গে অতিথি কুকুরটির সম্পর্ককে ঘিরেই আবর্তিত হয়েছে। সেখানে কুকুরটির প্রতি লেখকের মমত্ববোধ ও সহানুভূতিশীলতাই প্রাধান্য পেয়েছে। কিন্তু উদ্দীপকে এ ধরনের কোনো অনুভূতির বর্ণনা নেই। সেখানে মিসেস নুরুন্নাহারের স্বামী ও পুত্র হারানো দুঃখময় ঘটনার কথাই বর্ণিত হয়েছে, যা আলোচ্য  গল্পের ঘটনা থেকে অনেকটাই আলাদা। সেদিক বিবেচনায়, প্রশ্নোক্ত মন্তব্যটি যথাযথ ।

প্রশ্ন ৫। আসমা কয়েকটি হাঁস কিনে বাড়িতে নিয়ে আসে। কয়েক দিনের মধ্যে হাঁসগুলোর সঙ্গে তার বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। একদিন সকালে সে দেখে হাঁসগুলো ঘরের মধ্যে মরে আছে। তা দেখে সে কান্নায় ভেঙে পড়ে এবং পাগলের মতো হয়ে যায়।

ক. সবচেয়ে ভোরে ওঠে কোন পাখি?

খ. লেখক কেন বাড়ি ফিরে যাওয়ার আগ্রহ খুঁজে পেলেন?

গ. উদ্দীপকের সাথে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের সাদৃশ্য নিরূপণ করো।

ঘ. উদ্দীপকের আসমা ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের ভাবগত সাদৃশ্য থাকলেও প্রেক্ষাপট ভিন্ন’- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ করো।

৫ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক। সবচেয়ে ভোরে ওঠে দোয়েল পাখি।

খ। অতিথির প্রতি মমতার টান সৃষ্টি হওয়ায় লেখক তাকে ছেড়ে বাড়ি ফিরে যাওয়ার আগ্রহ খুঁজে পাচ্ছিলেন না।

চিকিৎসকের কথামতো বায়ু পরিবর্তনের জন্য দেওঘরে এসে লেখক একটি কুকুরকে সঙ্গী হিসেবে পান। কুকুরটিকে তিনি অতিথি হিসেবে বর্ণনা করেছেন। কুকুরটি হয়ে উঠেছিল তার একাকী জীবনের সঙ্গী। ফলে সেখান থেকে চলে আসার সময় কুকুরটিকে ছেড়ে আসতে লেখক কষ্ট অনুভব করছিলেন। আর তাই ট্রেন ছেড়ে দিলেও লেখক বাড়ি ফেরার আগ্রহ মনের মধ্যে খুঁজে পাচ্ছিলেন না।

গ। উদ্দীপকের প্রাণীর প্রতি ভালোবাসা প্রদর্শনের দিকটির সঙ্গে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের সাদৃশ্য রয়েছে।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে কথক বিকেলবেলা বাইরে হাঁটতে বের হলে ফিরে আসার পথে একটি কুকুর তার পিছু নেয়। কথক তাকে অতিথির মর্যাদা দিয়ে বাড়িতে এনে খাবার খেতে দেন। এরপর থেকে কথক বাইরে গেলে প্রতিদিনই কুকুরটি তাঁর সঙ্গী হয়। এমনকি কথুকের বিদায়বেলাতেও কুকুরটি তাঁর সঙ্গে স্টেশনে আসে। কথকও মমতার সঙ্গে তার এই স্মৃতি রোমন্থন করেন এবং অতিথির প্রতি তার প্রবল স্নেহ প্রকাশ পায়। উদ্দীপকের আসমা কয়েকটি হাঁস কিনে আনে। সে হাঁসগুলোকে খুব ভালোবাসে। কয়েক দিনের মধ্যে হাঁসগুলোর সাথে তার বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। কিন্তু একদিন সকালে হাঁসগুলোর মরে পড়ে থাকা দেখে সে কান্নায় ভেঙে পড়ে। তার আদরের হাঁসগুলোর মরে যাওয়া সে মেনে নিতে পারে না। তাই বলা যায়, পোষা প্রাণীর প্রতি ভালোবাস প্রদর্শনের দিকটি উদ্দীপকের সঙ্গে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পকে সাদৃশ্যপূর্ণ করে তুলেছে।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে একটি অবহেলিত প্রাণীর প্রতি কথকের

মমতার দিকটি প্রকাশ পেয়েছে, যা উদ্দীপকের ভাবের সঙ্গে

সাদৃশ্যপূর্ণ হলেও প্রেক্ষাপট ভিন্ন।

ঘ। ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে বায়ু পরিবর্তন করতে এসে কথকের সঙ্গে হঠাৎ করেই একটি কুকুরের দেখা হয়। অতিথি হিসেবে কুকুরটিকে তিনি বাড়িতে নিয়ে আসেন। চাকরকে বলে তাকে খাবার দেওয়া ও তার প্রতি লক্ষ রাখার মাধ্যমে কথকের সঙ্গে অতিথির একটা সখ্য গড়ে ওঠে। বিদায়বেলায় সবার মতো অতিথি কুকুরটিও কথককে বিদায় জানাতে আসে। আর এই স্মৃতিগুলোই পরবর্তীতে কথকের মনে কাতরতা সৃষ্টি করে।

উদ্দীপকে আসমার মধ্যেও কথকের মতা পোষা প্রাণীর প্রতি ভালোবাসার পরিচয় পাওয়া যায়। সে কয়েকটি হাঁস কিনে আনে পোষার জন্য। অল্প দিনের মধ্যেই তাদের প্রতি তার অকৃত্রিম মমতা সৃষ্টি হয় । কিন্তু একদিন সকালে সে দেখতে পায় হাঁসগুলো মরে পড়ে আছে। এই শশাকে আসমা অসুস্থ হয়ে পড়ে। কারণ হাঁসগুলোকে সে সত্যিই ভালোবেসেছিল।

উদ্দীপক ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের বিষয় পর্যালোচনা করে বলা যায়, উদ্দীপকের আসমা গল্পের কথকের মতোই প্রাণীর প্রতি স্নেহের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছে। তবে কথক দেওঘর ঘুরতে এসে অবহেলিত এক কুকুরের সাথে সখ্য গড়ে তোলেন যেখানে উদ্দীপকের পোষ্য প্রাণী ছিল কয়েকটি হাঁস। অতিথির প্রতি গল্পকথকের সহমর্মিতার মধ্য দিয়ে ভালবাসার সম্পর্ক গড়ে ওঠে, আর হাঁসগুলোর সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে আসমার। কথকের বিদায়ের দিন কুকুরটিও স্টেশনে আসে তাঁকে বিদায় জানাতে, কিন্তু আসমার হাঁসগুলো মারা যায়।

সুতরাং বলা যায়, উদ্দীপকে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের প্রাণীর প্রতি স্নেহের দিকটি প্রকাশ পেলেও প্রেক্ষাপটটি ভিন্নভাবে তুলে ধরা হয়েছে।

প্রশ্ন ৬। একদিন কক্সবাজার সৈকতে আছড়ে পড়ে প্রায় ত্রিশটির মতো বিরল প্রজাতির ডলফিন। আব্দুর রহমান ও তার বন্ধুরা মিলে ডলফিনগুলোকে পুনরায় সমুদ্রে নামানোর চেষ্টা করে। একে একে সবগুলো ডলফিনকে তারা জীবিত অবস্থায় পানিতে নামাতে পারে। এ কাজটি করতে পেরে ওরা প্রত্যেকেই খুব আনন্দিত এবং এলাকাবাসীর কাছেও প্রশংসিত হয়। থানা নির্বাহী কর্মকর্তা তাদের এমন ভালো কাজের জন্য পুরস্কৃত করে।

ক. লেখকের বিকেলটা কোথায় কাটত?

খ. বিদায় নেবার দিন এসে পড়লেও নানা ছলে লেখক দিন-দুই অপেক্ষা করলেন কেন?

গ. উদ্দীপকের আব্দুর রহমান এবং তার বন্ধুদের কার্যক্রমে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের কোন দিকটি প্রকাশিত হয়েছে? ব্যাখ্যা করো।

ঘ. “উদ্দীপকটিতে চেতনাগত ঐক্য লক্ষ করা গেলেও পরিণতির ভিন্নতা লক্ষণীয়।”- মন্তব্যটি ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের আলোকে মূল্যায়ন করো।

৬ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক। লেখকের বিকেলটা কাটত গেটের বাইরে পথের ধারে বসে।

খ। অতিথির প্রতি মমতার টান কাটাতে না পেরে লেখক দেওঘর থেকে বিদায় নিতে দিন-দুই অপেক্ষা করেন।

চিকিৎসকের পরামর্শ বায়ু পরিবর্তনের জন্য দেওঘরে গিয়ে লেখক একটি কুকুরকে সঙ্গী হিসেবে পান। কুকুরটিকে তিনি অতিথি হিসেবে বর্ণনা করেছেন। কুকুরটির সঙ্গে তাঁর ভালো একটি সম্পর্ক তৈরি হয়। ফলে চলে আসার সময় হলেও লেখক প্রাণীটিকে ছেড়ে আসতে কষ্ট অনুভব করছিলেন। এজন্যই দেওঘর থেকে বিদায় নিতে নানা ছলে লেখক দিন-দুই অপেক্ষা করেন।

গ। উদ্দীপকের আব্দুর রহমান এবং তার বন্ধুদের কার্যক্রমে অতিথির স্মৃতি’ গল্পের প্রাণীদের প্রতি মানুষের মমত্ববোধের দিকটি প্রকাশিত হয়েছে।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে লেখক অসুস্থ হয়ে বায়ু পরিবর্তনের জন্য দেওঘরে বেড়াতে যান। সেখানে বেড়ানোর সময় একটি কুকুর লেখকের পেছন পেছন চলতে থাকে। বাড়ি নিয়ে গিয়ে লেখক কুকুরটিকে খেতে দেন এবং সব সময় খোঁজখবর নেন। লেখক এখানে দেখিয়েছেন মানুষে মানুষে যেমন স্নেহ ও প্রীতির সম্পর্ক গড়ে ওঠে অন্য জীবের সঙ্গেও মানুষের তেমন সম্পর্ক গড়ে উঠতে পারে।

উদ্দীপকে কতিপয় ব্যক্তি কর্তৃক ডলফিনের প্রতি মমত্ববোধের দিকটি প্রকাশিত হয়েছে। কক্সবাজার সৈকতে প্রায় ত্রিশটি ডলফিন আছড়ে পড়ে। আব্দুর রহমান ও তার বন্ধুরা মিলে সেগুলোকে সমুদ্রে নামিয়ে দেয়। এই কাজটি করতে পেরে তারা খুব খুশি হয় এবং এলাকাবাসীও তাদের প্রশংসা করে। থানা নির্বাহী কর্মকর্তা তাদের এমন ভালো কাজের জন্য পুরস্কৃত করে। উদ্দীপকে প্রাণীদের প্রতি আব্দুর রহমান তার বন্ধুদের মমত্ববােধ প্রকাশিত হয়েছে। অতিথির স্মৃতি’ গল্পেও একটি কুকুরের প্রতি লেখকের মমত্ববোধ প্রকাশিত হয়েছে।

সুতরাং বলা যায় যে, উদ্দীপকের আব্দুর রহমান ও তার বন্ধুদের কার্যক্রমে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের প্রাণীদের প্রতি মমত্ববোধের দিকটি প্রকাশিত হয়েছে।

ঘ। অতিথির স্মৃতি’ গল্প ও উদ্দীপকে প্রাণীদের প্রতি মমত্ববোধের চেতনাগত ঐক্য লক্ষ করা গেলেও উভয় রচনার মধ্যে পরিণতির ভিন্নতা আছে।

“অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের সাথে কিছুদিনের পরিচয়ে একটি কুকুরের মমত্বের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। লেখক তার ভ্রমণসঙ্গী করে নেয় কুকুরটিকে। এমনকি তার খাওয়ার বন্দোবস্তও করেন। কিন্তু বাড়ির মালি-বৌ কুকুরটিকে খেতে না দিয়ে নিজেই সব খাবার নিয়ে যায় এবং কুকুরটিকে তাড়িয়ে দেয়। কুকুরটির প্রতি মমতা থাকলেও লেখককে একদিন কুকুরটিকে ছেড়ে চলে যেতে হয়। কিছু মানুষ জীবের প্রতি মমতায় সিক্ত হতে পারে। আবার কিছু মানুষ নির্মমও হতে পারে। এই বিষয়টিই আলোচ্য  গল্পে প্রকাশ করা হয়েছে।

উদ্দীপকে দেখানো হয়েছে ত্রিশটি বিরল প্রজাতির ডলফিন কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে আছড়ে পড়েছে। আব্দুর রহমান ও তার বন্ধুরা ডলফিনগুলোকে পুনরায় সমুদ্রে নামিয়ে দেয়। এ কাজটি করতে পেরে তারা খুবই আনন্দিত হয়। থানা নির্বাহী কর্মকর্তা তাদেরকে পুরস্কৃত করেন।

উদ্দীপকের আব্দুর রহমান ও তার বন্ধুদের কার্যক্রমে কেবল প্রাণীদের প্রতি মমত্ববোধই প্রকাশ পেয়েছে। এমনকি তাদের কাজের জন্য তারা পুরস্কৃতও হয়। কিন্তু অতিথির স্মৃতি’ গল্পের কুকুরটিকে বাড়ির চাকর ও মালিনী কর্তৃক অবহেলিত হতে দেখা যায়। একপর্যায়ে কুকরিটির একমাত্র শুভাকাঙ্ক্ষী লেখকও জীবনের প্রয়োজনে কুকুরটিকে ফেলে চলে যান। তাই বলা যায়, উদ্দীপকটিতে চেতনাগত ঐক্য লক্ষ করা গেলেও পরিণতির ভিন্নতা লক্ষণীয়।

প্রশ্ন ৭। লোপা কবুতর খুব ভালোবাসে। তার দুটো কবুতর আছে। একটির নাম হীরা, অন্যটির নাম মানিক। হীরা-মানিক বলে ডাকলেই উড়ে এসে লোপার মাথায় বসে বাক-বাকুম’ শব্দ করে। নিজের হাতে ওদের খাইয়ে দেয় লোপা। লোপার মা বলে,  “কবুতর নিয়ে এত বাড়াবাড়ি আমার ভালো লাগে না।” মার কথা শুনে চুপ করে থাকে লোপা।

ক. পাণ্ডুর’ শব্দের অর্থ কী?

খ. লেখক দেওঘরে গিয়েছিলেন কেন? বুঝিয়ে লেখো।

গ. উদ্দীপকের লোপার মধ্যে অতিথির স্মৃতি’ গল্পের কোন চরিত্রটি খুঁজে পাওয়া যায়? ব্যাখ্যা করো।

ঘ. “উদ্দীপক ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের মূলভাব একই।” উক্তিটির যথার্থতা বিশ্লেষণ করো।

৭ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক। ‘পাণ্ডুর’ শব্দের অর্থ— ফ্যাকাশে।

খ। লেখক দেওঘরে গিয়েছিলেন চিকিৎসকের পরামর্শে বায়ু পরিবর্তনের জন্য।

‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখক রোগে ভুগছিলেন। চিকিৎসা করেও কোনোরকম সুস্থতা বোধ করছিলেন না। তাই চিকিৎসকের পরামর্শে দেওঘরে গিয়েছিলেন বায়ু পরিবর্তনের জন্য। কেননা আবহাওয়া শরীর ও মনে একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। মানসিক প্রশান্তি ও রোগমুক্তির জন্য লেখক দেওঘরে গিয়েছিলেন।

গ| ভিন্ন প্রাণীর প্রতি মমত্ববোধের দিক থেকে উদ্দীপকের লোপার মধ্যে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের কথকের চরিত্রটি খুঁজে পাওয়া যায়।

মানুষ স্বভাবতই প্রকৃতিপরায়ণ। প্রকৃতির নানা অনুষঙ্গের সঙ্গে মানুষের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মানুষে মানুষে যেমন প্রীতির সম্পর্ক গড়ে ওঠে, তেমনি প্রকৃতির ভিন্ন জীবের প্রতিও মানুষের স্নেহপ্রীতির সম্পর্ক গড়ে উঠতে পারে। এমন বাস্তব চিত্র দেখা যায়, উদ্দীপক ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে।

উদ্দীপকের লোপা প্রকৃতি জগতের ভিন্ন প্রাণীকে ভালোবাসে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের কথকও ভিন্ন প্রাণীকে ভালোবাসেন। লোপা কবুতরকে খুব ভালোবাসে। হীরা ও মানিক নামের দুটো কবুতরকে সে নিজের হাতে খাইয়ে দেয়। তার পোষা কবুতর দুটিকে নাম ধরে ডাকলেই তারা তার মাথায় বসে বাক-বাকুম শব্দ করে। লোপার খুব ভালো লাগে। কিন্তু লোপার মা এসব পছন্দ না করলেও লোপা নীরবেই কবুতরগুলোকে ভালবেসে যায়। ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পেও দেখি, কথকের সঙ্গে একটি কুকুরের খুব ভাব হয়। কুকুরটি প্রতিদিন বিকেলবেলায় তাঁর ভ্রমণসঙ্গী হয়। কথকও কুকুরটিকে নিজ বাসায় নিয়ে খাবারের ব্যবস্থা করেন। যদিও বাসায় চাকরচাকরানিরা তা পছন্দ করে না। তবুও কথক কুকুরটির সঙ্গ ত্যাগ করেন না। কুকুরটিও গল্প কথককে ভুলতে পারে না। মানুষ ছাড়াও ভিন্ন প্রাণীর প্রতি অকৃত্রিম মমত্বের সম্পর্কের কারণে উদ্দীপকের লোপার মধ্যে অতিথির স্মৃতি’ গল্পের কথকের চরিত্রটি সার্থকভাবে খুঁজে পাওয়া যায়।

ঘ। প্রকৃতি জগতের ভিন্ন জীবের প্রতি মানুষের স্নেহ-প্রীতি ও সহানুভূতি প্রকাশের ক্ষেত্রে উদ্দীপকে ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের মূলভাব সমভাবে প্রবাহিত।

প্রকৃতি জগতের সঙ্গে মানুষের সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ। মানুষ প্রকৃতির গাছপালাকে ভালোবাসে। প্রকৃতির ভিন্ন জগতের জীবকেও ভালোবাসে, পোষ মানায়। কোনো কারণে তাদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন হলে বেদনাবোধ করে। এমন চেতনার প্রকাশ দেখা যায় উদ্দীপক ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে।

উদ্দীপক ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের মূলভাব ভিন্ন প্রাণীর প্রতি অকৃত্রিম দরদ ও ভালবাসা। উদ্দীপকের লোপা দুটি কবুতর পোষে। হীরা ও মানিক নামের কবুতর দুটিকে সে নিজের হাতে খাইয়ে দেয়। কবুতর দুটিকে সে প্রাণ দিয়ে ভালবাসে। তার মা এতে বিরক্তি প্রকাশ করলেও সে ভিন্ন জাতের প্রাণীকে নীরবে ভালবেসে যায়। উদ্দীপকের গল্পকথকও প্রকৃতিজগতের ভিন্ন প্রাণীর প্রতি পরম স্নেহগত প্রাণ। দেওঘরে থাকাকালে একটি কুকুরের সঙ্গে তার সখ্য গড়ে ওঠে। কুকুরটি প্রতিদিন বিকেলে তাঁর ভ্রমণসঙ্গী হয়। তিনিও কুকুরটিকে ভালবেসে নিজ বাসায় নিয়ে খাবার-দাবারের ব্যবস্থা করেন। যদিও বাসার চাকর-ভৃত্যরা তা পছন্দ করত না। তারা কুকুরটিকে মেরে তাড়িয়ে দিলেও প্রতিদিন কথককে সঙ্গ দিতে আসত। কথক দেওঘর থেকে নেওয়ার সময় কুকুরটির বিচ্ছেদ বেদনায় কাতর হন। ভিন্নপ্রাণীর প্রতি স্নেহ-মমতার ধরন ও প্রেক্ষাপট লাদা হলেও উদ্দীপক ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে দুটি পোষা কবুতর ও একটি অতিথি প্রাণী কুকুরের প্রতি মানুষের অকৃত্রিম দরদ প্রকাশ পেয়েছে। তাই বিষয় আঙ্গিক ভিন্ন হলেও বলা যায়, প্রকৃতিজগতের ভিন্ন পাখি ও পশুর প্রতি মানুষের মমত্ববোধই উদ্দীপক ও ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের মূলভাব। এদিক বিবেচনার প্রশ্নে উল্লিখিত উক্তিটি যথার্থ।

Download From Google Drive

Download

আরো পড়ুনঃ-

Download From Yandex

Download