কাকতাড়ুয়া উপন্যাসের সৃজনশীল ও বহুনির্বাচনি প্রশ্ন উত্তর

0
34

কাকতাড়ুয়া উপন্যাসের বহুনির্বাচনি ও সৃজনশীল

প্রশ্ন উত্তর পিডিএফ ডাউনলোড

নবম-দশম শ্রেণির বাংলা প্রথম পত্র থেকে সেলিনা হোসেন রচিত কাকতাড়ুয়া উপন্যাস

১. বাংলা সাহিত্যে ইংরেজি উপন্যাসের আদলে উপন্যাস লেখার সূত্রপাত ঘটে কখন?

ক) দেড়শ বছর আগে✔

খ) দুইশ বছর আগে

গ) আড়াইশ বছর আগে

ঘ) তিনশ বছর আগে

২. বাংলা সাহিত্যে প্রথম সার্থক উপন্যাস কোনটি?

ক) ফুলমনি ও করুণার বিবরণ

খ) আলালের ঘরের দুলাল

গ) দুর্গেশনন্দিনী✔

ঘ) কপালকুণ্ডলা

৩. বাঙালির গৃহকাতরতা ও পারিবারিক আবেগের উপর ভিত্তি করে উপন্যাস রচনা করেছেন কে?

ক) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

খ) শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়✔

গ) মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়

৪. আধুনিক উপন্যাসের সূচনা ঘটার পিছনে প্রভাবক ছিল-

  1. লিখতে শেখা
  2. ছাপাখানার আবির্ভাব

iii. গল্পকথকদের বিলুপ্তি

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i

খ) i ও ii

গ) ii ও iii✔

ঘ) i, ii ও iii

৫. ফস্টারের মতে, উপন্যাসের শব্দসংখ্যা কমপক্ষে কত হাজার হওয়া বাঞ্ছনীয়?

ক) বিশ হাজার✔

খ) পঁচিশ হাজার

গ) ত্রিশ হাজার

ঘ) পঁয়ত্রিশ হাজার

৬. ‘উপন্যাস’ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ-

  1. Fiction
  2. Novel

iii. Short story

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i ও ii✔

খ) i ও iii

গ) ii ও iii

ঘ) i, ii ও iii

৭. এ পর্যন্ত লেখা পৃথিবীর সবচেয়ে বড় উপন্যাস কোনটি?

ক) ওয়ার অ্যান্ড পিস

খ) আসপেক্টস অব দ্যা নভেল

গ) ওয়ান হানড্রেড ইয়ারস অব সলিটিউড

ঘ) ইন সার্চ অব লস্ট টাইম✔

৮. উপন্যাসের উপাদান হলো-

  1. কাহিনী বা গল্প
  2. চরিত্র

iii. বর্ণনাভঙ্গি

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i

খ) i ও ii

গ) ii ও iii

ঘ) i, ii ও iii✔

৯. “মরণের কথা মনে করলে যুদ্ধ করা যায় না”- কথাটি কে বলেছে?

ক) বুধা

খ) শাহাবুদ্দিন

গ) ফুলকলি

ঘ) কুন্তি✔

১০. কার কাঁধে মাথা রেখে তিনু ঘুমিয়ে যেত?

ক) বিনু

খ) শিলু

গ) বুধা✔

ঘ) তালেব

১১. “নদীর তলে খুঁজে দেখ। আমাকে জিজ্ঞেস করো কেন? আমি কি ওদের গার্জিয়ান?” – এ কথার মাঝে প্রকাশ পেয়েছে বুধার-

ক) খেয়ালিপনা

খ) কৌশল✔

গ) অজ্ঞতা

ঘ) বিচক্ষণতা

১২. বুধা রাজাকার কমান্ডারের বাড়িতে আগুন দেয় কেন?

ক) প্রতিশোধ নিতে✔

খ) প্রতিহিংসায়

গ) ফুলকলিকে বাঁচাতে

ঘ) ব্যক্তিস্বার্থে

১৩. এখন থেকে তোকে আমি ‘জয়বাংলা’ বলে ডাকবো- এখানে কার কথা বলা হয়েছে?

ক) ফুলকলি

খ) কুন্তি

গ) বুধা✔

ঘ) মিঠু

১৪. বুধাকে ‘ছন্নছাড়া’ বলে কে ডাকে?

ক) গাঁয়ের লোক

খ) নোলকবুয়া✔

গ) হরিকাকু

ঘ) জয়নাল চাচা

১৫. বুধাকে দেখে কুন্তির দৃষ্টি চকচক করে ওঠে কেন?

ক) ভয়ে

খ) খুশিতে✔

গ) চমকে যাওয়ায়

ঘ) শাপলা দেখে ফেলায়

১৬. কুন্তি তার চাচা-চাচির কবরের মাথায় যে গাছ লাগিয়েছে-

  1. আকন্দ
  2. গোলাপ

iii. ধুতরা

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i ও ii

খ) i ও iii✔

গ) ii ও iii

ঘ) i, ii ও iii

১৭. ‘রেকি করা’ বলতে কী বোঝায়?

ক) কোনো ঘটনার তদন্ত করা

খ) কোনো বিশেষ ব্যক্তিকে অনুসরণ করা

গ) কোথাও আক্রমণের আগে বিস্তারিত জানা✔

ঘ) আক্রমণের উদ্দেশ্যে শত্রুদলে অনুপ্রবেশ করা

উদ্দীপকটি পড়ে ১৮ ও ১৯ নম্বর প্রশ্নের উত্তর দাও:

গ্রামে ডাকাতের উপদ্রব বেড়ে গেলে অধিকাংশ গ্রামবাসী গ্রাম ছেড়ে পালাতে থাকে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া রাকিব গ্রাম ছেড়ে যেতে চায় না। সে বলে, গ্রামটা আমার। এখান থেকে আমি এক পা-ও নড়ব না।

১৮. উদ্দীপকের রাকিবের সাথে কাকতাড়ুয়া উপন্যাসের কোন চরিত্রটি সাদৃশ্যপূর্ণ?

ক) ফুলকলি

খ) মতিউর

গ) নোলকবুয়া

ঘ) বুধা✔

১৯. উল্লিখিত চরিত্রের মাঝে দেখতে পাই-

  1. মানবিকতা
  2. দেশাত্মবোধ

iii. অসীম সাহস

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i ও ii

খ) i ও iii

গ) ii ও iii✔

ঘ) i, ii ও iii

২০. “আমি তো এখন স্বাধীন মানুষ” – বুধার এই কথা বলার কারণ-

  1. সে পরিবারের বন্ধনমুক্ত
  2. চাচি ওকে মুক্তির কথা বলে স্বাধীন হওয়ার স্বপ্ন দিয়েছে

iii. দেশ স্বাধীন হয়ে গেছে

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i

খ) iii

গ) i ও ii✔

ঘ) i, ii ও iii

২১. কাকতাড়ুয়া উপন্যাসে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি কে?

ক) কানু দয়াল

খ) আহাদ মুন্সি✔

গ) শাহাবুদ্দিন

ঘ) ফুলকলি

২২. ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের কাহিনী সম্পর্কে বলা যায়-

  1. শুধু বড়রা নন, একজন কিশোরও মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে পারে
  2. গ্রামের অবহেলিত, প্রান্তিক এক কিশোরের স্বাধীনতা সংগ্রামের দলিল

iii. মুক্তিযুদ্ধ যাদের দেখা হয় নি, তারা এ সম্পর্কে কিছুটা হলেও ধারণা পাবে

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i ও ii

খ) i ও iii

গ) ii ও iii

ঘ) i, ii ও iii✔

২৩. কে বুধাকে কাকতাড়ুয়া খেলা খেলতে নিষেধ করেছিল?

ক) চাচী

খ) কুন্তি

গ) রানি✔

ঘ) মিঠু

উদ্দীপকটি পড়ো এবং ২৪ ও ২৫ নম্বর প্রশ্নের উত্তর দাও:

সার্থক জীবন আর বাহু-বল তার হে, বাহু-বল তার। আত্মনাশে যেই করে দেশের উদ্ধার হে, দেশের উদ্ধার।।

২৪. কবিতাংশের বক্তব্য ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের কোন চরিত্রে যথাযথভাবে প্রতিফলিত হয়েছে?

ক) বুধা

খ) মিঠু

গ) মধু✔

ঘ) আলি

২৫. প্রতিফলিত দিকটি হলো-

  1. স্বদেশপ্রেম
  2. মানবপ্রেম

iii. স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষা

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i ও ii

খ) i ও iii✔

গ) ii ও iii

ঘ) i, ii ও iii

২৬. ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসে বাঙ্কার খোঁড়া হচ্ছিল কোন মাসে?

ক) আষাঢ়

খ) শ্রাবণ✔

গ) ভাদ্র

ঘ) আশ্বিন

২৭. সেলিনা হোসেন কবে জন্মগ্রহণ করেন?

ক) ১ জুন, ১৯৪৭

খ) ১৪ জুন, ১৯৪৭✔

গ) ১ জানুয়ারি, ১৯৪৮

ঘ) ১৩ ডিসেম্বর, ১৯৪৮

২৮. সেলিনা হোসেনের লেখালেখির সূচনা হয়-

  1. ছাত্রাবস্থায়
  2. পঞ্চাশের দশকের মাঝামাঝি সময়ে

iii. ষাটের দশকে

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i

খ) ii

গ) i ও ii

ঘ) i ও iii✔

২৯. সেলিনা হোসেন রচিত উপন্যাস নয় কোনটি?

ক) হাঙর নদী গ্রেনেড

খ) পোকামাকড়ের ঘরবসতি

গ) আগুনপাখি

ঘ) যমুনা নদীর মুশায়েরা

৩০. লেখক সেলিনা হোসেন-

  1. বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন
  2. বাংলা একাডেমির পরিচালক ছিলেন

iii. শিশু একাডেমির পরিচালক ছিলেন

নিচের কোনটি সঠিক?

ক) i

খ) i ও ii✔

গ) i ও iii

ঘ) i, ii ও iii

৩১. কত সালে সেলিনা হোসেন স্বাধীনতা পুরস্কার পান?

ক) ২০১০

খ) ২০০৮

গ) ২০১৪

ঘ) ২০১৮✔

৩২. ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের লেখকের জীবনভাবনা কী?

ক) অত্যাচারীর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হয়, প্রতিশোধ গ্রহণ করতে হয়✔

খ) স্বাধীনতার জন্য প্রবল আকাঙ্ক্ষা থাকতে হয়

গ) কিশোরেরাই স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে পারে

ঘ) স্বাধীনতার স্বাদ সবার একান্ত কাম্য

৩৩. ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসে অনুপস্থিত থেকেও কার প্রভাব স্পষ্ট?

ক) মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী

খ) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান✔

গ) তাজউদ্দীন আহমদ

ঘ) বঙ্গবীর এম. এ. জি. ওসমানী

কাকতাড়ুয়া উপন্যাসের সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর

প্রশ্ন ১। সুমন তার পরিবারের সাথে সাভারে বেড়াতে গিয়ে জাতীয় স্মৃতিসৌধ দেখে অবাক হয়। সে মায়ের কাছে এ স্মৃতিসৌধ সম্পর্কে জানতে চায়। মা তাকে বলে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের স্মরণে এই স্মৃতিসৌধটি নির্মিত হয়েছে। স্মৃতিসৌধ তরুণ প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্য দলিল হয়ে দাড়িয়ে আছে।

ক. উপন্যসের আখ্যানভাগ কী?

খ. আলো-আঁধার বুধার কাছে সমান কেন?

গ. উদ্দীপকের স্মৃতিসৌধ ‘কাকতাড়ুয়া উপন্যাসের কোন স্মৃতি মনে করিয়ে দেয়? ব্যাখ্যা কর।

ঘ. উদ্দীপকের স্মৃতিসৌধ ও ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাস উভয়ই মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্য দলিল”- বিশ্লেষণ কর।

১নং প্রশ্নের উত্তর

উত্তরঃ- ক। উপন্যাসের আখ্যানভাগ হচ্ছে- Plot বা কাহিনি-সমগ্র।

উত্তরঃ- খ। বুধার জীবনাচরণ ও চলাফেরায় ভয়শূন্য এবং কোনো সময়-অসময় নেই বলে তার কাছে আলো-আঁধার সবই সমান।

বাবা-মা, ভাই-বোনদের হারিয়ে বুধা এই পৃথিবীতে বড় একা। সে ছন্নছাড়া, উদ্দেশ্যহীন জীবনযাপন করে। ঘুরতে ঘুরতে যে কোথায় যায় সেই হিসাব সে রাখে না। ওর কাছে উত্তর-দক্ষিণ, পূর্ব-পশ্চিম সব সমান। মনে করে যেদিক দু চোখ যায় সেদিকেই ওর জন্য রাস্তা খোলা। হাটে মাঠে ঘুরে বেড়ায়। খেয়ে না-খেয়ে দিন কাটায়। চলাফেরায় সে ভয়শূন্য। রাত পোহালেই দিনের আলো, সূর্য ডুবলেই আঁধার। এ জন্য বুধার কাছে আলো -আঁধার সবই সমান।

উত্তরঃ- গ। উদ্দীপকের স্মৃতিসৌধ ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের মুক্তিযুদ্ধ ও শহিদদের স্মৃতি স্মরণ করিয়ে দেয়।

মুক্তিযুদ্ধ বাঙালির অহংকার, বাংলার ইতিহাসের এক গৌরবমণ্ডিত অধ্যায়। ১৯৭১ সালে বাংলার মুক্তিপাগল জনতা শত্রুধ্বংসের মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। এদেশের সাহসী সন্তানরা নিজেদের জীবন উৎসর্গ করে স্বদেশকে শত্রুমুক্ত করেছে।

উদ্দীপকের স্মৃতিসৌধ’ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের প্রতীক। এটি বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের সুদীর্ঘ ইতিহাসের স্মারক। এর মধ্য দিয়ে বাংলার মানুষের দেশপ্রেমও প্রতিফলিত হয়। এই স্মৃতিসৌধ ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের মুক্তিযুদ্ধ ও শহিদদের স্মৃতিকে মনে করিয়ে দেয়। কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসে মুক্তিযুদ্ধের বর্ণনা পাওয়া যায়। রাজাকার-শান্তি কমিটির চেয়ারম্যানের ঘর পুড়িয়ে দেওয়া, মিলিটারি ক্যাম্পে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা ও ব্যাংকারে মাইন পুঁতে মিলিটারি ক্যাম্প উড়িয়ে দেওয়া মুক্তিযুদ্ধের অংশ। বুধা এসব কাজের কোনোটা করেছে নিজের বুদ্ধিতে আর কোনোটা করেছে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহাবুদ্দিনের নেতৃত্বে। বুধার গ্রামের অনেকেই পাকিস্তানিদের গুলিতে শহিদ হয়েছেন। তাদের এসব স্মৃতিই বহন করে চলেছে উদ্দীপকের স্মৃতিসৗধ।

উত্তরঃ- ঘ। “উদ্দীপকের স্মৃতিসৌধ’ ও ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাস উভয়ই মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্য দলিল”- মন্তব্যটি যথার্থ।

১৯৭১ সালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বাঙালিদের ওপর নির্মম নির্যাতন শুরু করে। তাদের সেই নিষ্ঠুর হত্যাযজ্ঞের ভয়ে বাঙালি পিছপা না হয়ে যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে তাদের মোকাবিলা করে। অবশেষে তাদের পরাজিত করে অনেক রক্ত ও ত্যাগের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জন করে।

উদ্দীপকের সুমন মায়ের সঙ্গে সাভারে গিয়ে স্মৃতিসৌধ দেখে অবাক হয়। স্মৃতিসৌধ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে তার মা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের শহিদদের স্মরণে এই স্মৃতিসৌধটি নির্মিত হয়েছে। স্মৃতিসৌধ তরুণ প্রজন্মের কাছে প্রামাণ্য দলিল হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। অন্যদিকে কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের প্রেক্ষাপট ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ। এক সাহসী কিশোর বুধা। গ্রামে মিলিটারি আসার পর থেকে তার ও মুক্তিযোদ্ধা শাহাবুদ্দিন, আলি ও মিঠুর কর্মকাণ্ড, আহাদ মুন্সি ও রাজাকারদের তৎপরতা, গ্রামবাসীর মৃত্যু, ধ্বংসলীলা, গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে মানুষের আত্মরক্ষার চেষ্টা, মুক্তিযোদ্ধাদের গেরিলা আক্রমণ, বুধাদের প্রতিশোধ গ্রহণ সবই মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকে ধারণ করে।

কাকতাড়ুয়া’উপন্যাসে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন প্রেক্ষাপট বর্ণিত হয়েছে। আর সাভারের স্মৃতিসৌধ মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকে স্মরণ এবং ইতিহাস বহন করেছে। উভয় জায়গায় মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের বিষয়টি প্রকাশ পেয়েছে। এসব দিক বিচারে উদ্দীপকের স্মৃতিসৌধ ও কাকতাড়ুয়া”উপন্যাস উভয়ই মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্য দলিল।

প্রশ্ন ২। বিদেশি সেনার কামানে বুলেটে বিদ্ধ

নারী শিশু আর যুবক জোয়ান-বৃদ্ধ

শত্রু সেনারা হত্যার অভিযানে

মুক্তিবাহিনী প্রতিরোধ উথানে।

ক. ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের মিঠুর ভাইয়ের নাম কী?

খ. এমন খুশি আমার জীবনে আর আসেনি’- বুধার এ উক্তির কারণ কী? ব্যাখ্যা কর।

গ. উদ্দীপকে প্রথম দুই চরণে কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের যে দিকটি ফুটে উঠেছে তা ব্যাখ্যা কর।

ঘ. উদ্দীপকটি ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বিষয়বস্তুর খণ্ডিত অংশমাত্র- মন্তব্যটির সপক্ষে তোমার যুক্তি দাও।

২নং প্রশ্নের উত্তর

উত্তরঃ- ক। কাকতাড়ুয়া উপন্যাসের মিঠুর ভাইয়ের নাম মধু।

উত্তরঃ- খ। “এমন খুশি আমার জীবনে আর আসেনি’- বুধার এ উক্তির কারণ উদ্দেশ্য সফলে তার উচ্ছ্বাস ও উৎফুল্লতা।

বুধা বাবা-মা, ভাই-বোন হারানো আত্মভোলা এক কিশোর। মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদারদের অত্যাচার এবং রাজাকারদের বিশ্বাসঘাতকতা তাকে প্রতিশোধ পরায়ণ করে তোলে। সে আলি, মিঠুদের পরিকল্পনা মতো রাজাকার কমান্ডারের বাড়ি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। অপারেশন সফলভাবে সম্পন্ন করার পর আলি, মিঠুরা বুধাকে বাহবা দিয়ে বুকে জড়িয়ে নেয়। বুধা তখন হাসতে থাকে। তার সেই হাসির কারণ জিজ্ঞাসা করলে জানায় যে, সে খুশিতে হাসে। বুধার মতে এমন খুশি তার জীবনে আর আসেনি।

উত্তরঃ- গ। উদ্দীপকের প্রথম দুই চরণে ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের পাকিস্তানি মিলিটারির বুধার গ্রামের বাজার আক্রমণ ও হত্যাযজ্ঞের দিকটি ফুটে উঠেছে।

মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এদেশের নিরীহ মানুষের ওপর নির্মম অত্যাচার ও হত্যাযজ্ঞ চালায়। তারা নারী-পুরুষ, শিশুবৃদ্ধ কাউকেই রেহাই দেয়নি। তারা সারা দেশ আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে ছারখার করে দেয়।

উদ্দীপকের প্রথম দুই চরণে পাকিস্তানি সেনাদের নির্মম অত্যাচার, নির্যাতন এবং বাঙালির অসীম সাহসিকতার দিকটি ফুটে উঠেছে। সেখানে বিদেশি সেনাদের কামানে-বুলেটে ছিন্নভিন্ন বাংলার নারী-শিশু, যুবক-বৃদ্ধ যা ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের একটি দিক। উপন্যাসেও পাকিস্তানি সেনাদের অত্যাচার, নিপীড়ন, নির্যাতন, হত্যা ইত্যাদি বিষয় উপস্থাপিত হয়েছে। পাকিস্তানি সেনারা বুধার গ্রামে এসে নিরীহ মানুষদের নির্বিচারে হত্যা করে। আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় ঘর-বাড়ি বাজার। তাই আমরা বলতে পারি যে, উদ্দীপকের প্রথম দুই চরণে আলোচ্য উপন্যাসের পাকিস্তানিদের আক্রমণ ও হত্যাযজ্ঞের দিকটি ফুটে উঠেছে।

উত্তরঃ- ঘ। উদ্দীপকটি ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বিষয়বস্তুর খণ্ডিত অংশমাত্র- মন্তব্যটি যথার্থ।

১৯৭১ সালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী অন্যায়ভাবে বাঙালিদের ওপর হামলা চালায়। তারা নির্বিচারে মানুষ হত্যা শুরু করে। তাদের সেই অন্যায়ের প্রতিবাদে বাঙালিরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। অবশেষে অনেক ত্যাগ ও রক্তের বিনিময়ে শত্রুকে পরাজিত করে বাঙালি তাদের কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা অর্জন করে।

উদ্দীপকে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি সেনাদের অত্যাচার-নির্যাতন, হত্যাযজ্ঞ এবং তাদের বিরুদ্ধে বাঙালিদের প্রতিরােধের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। শত্রুসেনার হত্যার অভিযানে মুক্তিবাহিনীর অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বের দিকও উদ্দীপকে প্রতিফলিত হয়েছে। এই বিষয়টি কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসেও বর্ণিত হয়েছে। এই বিষয়টি ছাড়াও উপন্যাসে আরও কিছু বিষয় রয়েছে। উদ্দীপকের বিষয়টি উপন্যাসে বর্ণিত অনেক বিষয়ের মধ্যে অন্যতম একটি।

‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসে বুধা নামের এক কিশোরের স্বদেশপ্রেম প্রতিফলিত হয়েছে। এই উপন্যাসে বুধার বাবা-মা, ভাই-বােন কলেরায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করে। তখন থেকেই সে একা একা বেড়ে ওঠে। তার ছন্নছাড়া জীবন, সাহসী হয়ে ওঠা, রাজাকারের বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া, বাংলার গ্রামে-গঞ্জে পাকিস্তানি বাহিনীর বর্বর হত্যাযজ্ঞ চালানো, মুক্তিবাহিনীর গ্রামে প্রবেশ, দুধাকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলা ইত্যাদি বিষয় উপন্যাসে বর্ণিত হয়েছে। এই বিষয়গুলো উদ্দীপকে সম্পূর্ণরূপে উপস্থাপিত হয়নি। এই দিক বিচারে তাই বলা যায়, প্রশ্নোত্ত মন্তব্যটি যৌক্তিক।

প্রশ্ন ৩।

(i)স্বাধীনতা তোমার জন্য উজাড় হয়েছে কত গ্রাম-শহর বস্তি।

হারিয়েছি কত মায়ের বোনের সম্প্রম,

কেড়ে নিয়েছে হায়নারা কত তাজা প্রাণ

শিশু-কিশোর-যুবা আর বৃদ্ধের।

(ii)যদি তুমি ভয় পাও, তবে তুমি শেষ

আর যদি তুমি রুখে দাঁড়াও তবে তুমি বাংলাদেশ।

ক. বুধা দুঃখকে কী ভাবে?

খ. “দিন যাপনে ওর কোনো কষ্ট নেই।”- কথাটি দ্বারা কী বোঝানো হয়েছে?

গ. উদ্দীপকের প্রথমাংশে ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের কোন দিকটি প্রতিফলিত হয়েছে? ব্যাখ্যা কর।

ঘ. উদ্দীপকের দ্বিতীয়াংশের ভাবধারা কাকতাড়ুয়া উপন্যাসের বুধার চেতনারই বহিঃপ্রকাশ।- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ কর।

৩নং প্রশ্নের উত্তর

উত্তরঃ- ক। বুধা দুঃখকে হিংস্র শকুন ভাবে।

উত্তরঃ- খ। বুধা স্বাধীনভাবে যেখানে খুশি সেখানে ইচ্ছেমতো ঘুরে বেড়ায় বলে তার দিন যাপনে কোনো কষ্ট নেই। কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসে বাবা-মা, ভাই-বোনদের হারানোর পর বুধা একা হয়ে পড়ে। বিশ্বসংসারে তার কোনোকিছুতেই যেন কোনো বাধা নেই। তার কাছে রাত আর দিন সবই সমান। কারণ সে যেখানে ইচ্ছে যায়, যা ইচ্ছে তাই করে। বুধা মনে করে ওর জন্য সব রাস্তা খোলা। তার আনন্দ-কান্না সব যেন এক। এভাবে মুক্ত দিন যাপনে ওর কোনো কষ্ট নেই।

উত্তরঃ- গ। উদ্দীপকের প্রথমাংশে ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নৃশংসতার দিকটি প্রতিফলিত হয়েছে।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বাংলার মানুষের ওপর নির্মম নির্যাতন ও হত্যাযজ্ঞ চালায়। তারা নারী, পুরুষ, শিশু, বৃদ্ধ কাউকেই রেহাই দেয়নি। বর্বর হানাদার বাহিনী এদেশের সাধারণ মানুষদের নির্মমভাবে হত্যা করে।

উদ্দীপক (i)-এ মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নৃশংসতার দিকটি প্রতিফলিত হয়েছে। পাকিস্তানি সেনারা গ্রামের পর গ্রাম পুড়িয়ে ছারখার করেছে। হরণ করেছে মা-বোনর সম্রম। কেড়ে নিয়েছে লাখ লাখ তাজা প্রাণ। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর এমন নৃশংসতার চিত্র ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসেও দৃশ্যমান। পাকিস্তানি হানাদাররা বাংলাদেশে যে নির্মম ও বর্বর হত্যাযজ্ঞ চালায় তা ঔপন্যাসিক নিষ্ঠার সঙ্গে তুলে ধরেছেন। বুধাদের গ্রামেও মিলিটারি ও রাজাকারুরা ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। গ্রামে আগুন দেয়, নির্মমভাবে গুলি করে মানুষ হত্যা করে। উপন্যাসের এই নৃশংসতার দিকটিই উদ্দীপকের প্রথমাংশে প্রতিফলিত হয়েছে।

উত্তরঃ- ঘ। উদ্দীপকের দ্বিতীয়াংশের ভাবধারা কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধার চেতনারই বহিঃপ্রকাশ।- মন্তব্যটি যথার্থ।

দেশকে স্বাধীন করার জন্য স্বাধীনতাকামী মানুষ মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। প্রবল আত্মবিশ্বাসে বলীয়ান হয়ে তারা বীরবিক্রমে শত্রুর ওপর ঝাপিয়ে পড়ে। দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ করে ছিনিয়ে আনে বাংলার স্বাধীনতা।

উদ্দীপকের দ্বিতীয়াংশে ভয় ভুলে অন্যায়ের প্রতিবাদ করে অধিকার প্রতিষ্ঠায় দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হওয়ার কথা বলা হয়েছে কারণ ভয় পেলে কোনো মহৎ কাজ ও অধিকার আদায় করা যায় না। শত্রুপক্ষ তোমাকে কখনো মাথা তুলে দাঁড়াতে দেবে না। আর যদি রুখে দাঁড়াও তবে দেশকে স্বাধীন করতে পারবে। এই চেতনাটি যেন ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধার চেতনারই বহিঃপ্রকাশ। কেননা বুধা কিশোর হলেও অসীম সাহসিকতায় যুদ্ধ করে দেশকে স্বাধীন করতে চেয়েছে।

‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধা এক এতিম কিশোর। সে কিশোর হলেও অসীম সাহস আর মানবিক গুণাবলির অধিকারী। দেশকে ভালোবাসে বলে সে মুক্তিযোদ্ধা হয়ে ওঠে। শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান আর রাজাকার কমান্ডারের বাড়ি সে পুড়িয়ে দেয়। মিলিটারির বাঙ্কারে মাইন পুঁতে আসে। সে ভয় পায় না, অসীম সাহস নিয়ে এগিয়ে যায়। দেশকে শত্রুমুক্ত করেই সে থামতে চায়। এই বুধার চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে উদ্দীপকের দ্বিতীয়াংশে।

প্রশ্ন ৪। ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র হোসেন। মা-বাবা ও দুই ভাইবোন মিলে ভালোই যাচ্ছিল দিন। বাবা ঢাকায় একটা কোম্পানির চাকরি করে। তাতে তাদের সংসার ও পড়ালেখার খরচ ভালোই চলে। একদিন সবাই মিলে বেড়াতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় মা-বাবা ও ছোট বোনকে হারায় সে। সকলকে হারিয়ে পাগলের মতো হয়ে যায় হোসেন। অনেকে তাকে কাজের বিনিময়ে রেখে দিতে চায়। কিন্তু সে রাজি হয় না। শোককে সামলে লেখাপড়ার ফাঁকে অল্প রোজগারে কাজ করে নিজের খাওয়া-পরার ব্যবস্থা করে। এভাবে সে নিজের প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম চালিয়ে যায়।

ক. শাহাবুদ্দিন কার ছবি আঁকবে?

খ. “এবার মৃত্যুর উৎপাত শুরু করেছে ভিন্ন রকমের মানুষ।”- বাক্যটি দ্বারা কী বোঝানো হয়েছে?

গ. উদ্দীপকের হোসেনের নিঃস্ব হওয়ার দিকটি ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের কোন ঘটনার সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ? ব্যাখ্যা কর।

ঘ. উদ্দীপকের হোসেনের চেয়ে কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধা চরিত্রটিই অধিক তাৎপর্যপূর্ণ।”- মন্তব্যটি বিশ্লেষণ কর।

৪নং প্রশ্নের উত্তর

উত্তরঃ- ক। শাহাবুদ্দিন বুধার সাহসী ও হাস্যোজ্জ্বল ছবি আঁকবে।

উত্তরঃ- খ। “এবার মৃত্যুর উৎপাত শুরু করেছে ভিন্ন রকমের মানুষ।”- বাক্যটি দ্বারা পাকিস্তানি সেনাদের নির্মম হত্যাযজ্ঞের বিষয়টি বোঝানো হয়েছে।

কাকতাড়ুয়া উপন্যাসে গ্রামে কলেরার আক্রমণে বুধার মা-বাবা, ভাই-বোন মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। সেই সময় যে মৃত্যু বুধা দেখেছিল তা ছিল একটি বিশেষ রােগের কারণে। আর যুদ্ধের সময় সে যে মৃত্যু দেখছে তা ভিন্ন রকম মানুষের নির্মমতায় শুরু হয়েছে। বুধার চিরচেনা পথ ধরে গুলি ছুড়তে ছুড়তে জিপে করে পাকিস্তানি সেনারা তার গ্রামে প্রবেশ করে, বাজারে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং অনেক মানুষকে হত্যা করতে থাকে। তাদের এই নৃশংস হত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞের বর্ণনা প্রসঙ্গে বুধা প্রশ্নোক্ত উক্তিটি করেছে।

উত্তরঃ- গ। উদ্দীপকের হোসেনের নিঃস্ব হওয়ার দিকটি কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধার বাবা-মা-ভাই-বােনকে হারিয়ে অনাথ হয়ে যাওয়ার ঘটনার সাঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ।

প্রত্যেক সন্তানই মা-বাবাকে আঁকড়ে ধরে বাঁচতে চায়। মা-বাবা সন্তানের সবচেয়ে আপনজন। পিতৃমাতৃহীন সন্তানের ব্যথা-যন্ত্রণা অবর্ণনীয়। সে সবার কাছে একটু স্নেহ-মমতা আশা করে। অসহায় জীবনে বেঁচে থাকার জন্য আশ্রয় প্রার্থনা করে।

উদ্দীপকে সড়ক দুর্ঘটনায় পিতৃমাতৃহীন এক কিশোরের কষ্ট-যন্ত্রণার দিকটি তুলে ধরা হয়েছে। কিশোর হোসেন মা-বাবা ও ছোট বোনকে হারিয়ে অসহায় হয়ে পড়ে। অনেকে কাজের বিনিময়ে তাকে রাখতে চায়। কিন্তু সে রাজি হয় না। নিজে আয়-রোজগার করে খাওয়ার ব্যবস্থা করে। উদ্দীপকের হোসেনের এই অসহায় অবস্থা কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধার অসহায় অবস্থার সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ। কলেরায় আক্রান্ত হয়ে বুধার বাবা-মা, ভাই-বোন সবার মৃত্যু হলে সে চাচার বাড়িতে আশ্রয় লাভ করে। সেখানে তার চাচি তাকে আয়-রোজগার করে নিজের দায়িত্ব নিজেকে নিতে বলে। তার খাওয়া-পরা-আশ্রয়ের ভার থেকে চাচিকে মুক্তি দিতে বলে। বুধাও তখন অসহায় বোধ করে। এভাবে বিষয়টি সাদৃশ্যপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

উত্তরঃ- ঘ। উদ্দীপকের হোসেনের চেয়ে কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধা চরিত্রটিই অধিক তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্যটি যথার্থ।

অনেক সময় আমরা বাহ্যিক আচরণ দেখে ভুল মনে করি। কারণ তারা হয়তো আমাদের মতো করে তাদের অনুভূতি প্রকাশ করতে পারে না। কিন্তু তাই বলে তাদেরকে ভুল বোঝার কোনো অবকাশ নেই। সব মানুষের মধ্যকার অনুভূতি একই রকম, শুধু প্রকাশভঙ্গি আলাদা আলাদা হয়ে থাকে।

ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র হোসেন দুর্ঘটনায় বাবা-মা ও ভাইবোনকে হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়ে। পথে পথে পাগলের মতো ঘুরে বেড়ায়। কেউ সাহায্য করতে চাইলে সেটা না নিয়ে নিজের পায়ে দাঁড়াত চেয়েছে। হোসেন চরিত্রের এদিকটির সঙ্গে বুধা চরিত্রের সাদৃশ্য থাকলেও বুধা চরিত্রটি অধিক সক্রিয় ও তাৎপর্যপূর্ণ। কেননা ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসে পাকিস্তানি সেনারা যখন এ দেশে এসে মানুষের ওপর নানাভাবে অত্যাচার করে, তখন বুধা এসব দেখে ভেতরে ভেতরে ক্ষুব্ধ হয়। শুধু তাই নয়, সে তাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। কেউ তাকে শত্রু চিনিয়ে না দিলেও সে ঠিকই শত্রু চিনে নিয়েছে। একা তাদেরকে ধ্বংস করার প্রয়াস চালিয়েছে। সে একা আহাদ মুন্সির বাড়িতে আগুন দিয়েছে, ক্যাম্পে রেকি করতে পাঠালে অত্যন্ত বিচক্ষণতার সঙ্গে রেকি করে এবং পরবর্তী সময়ে মাইন পুঁতে আসে। বুধা তার ক্রোধ ভেতরে যেমন পুষে রেখেছে তেমনই এর প্রকাশও ঘটিয়েছে।

উদ্দীপকের হোসেন চরিত্রে কোন প্রতিবাদী চেতনা লক্ষ করা যায় না। অন্যদিকে ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধা পাকিস্তানি সেনাদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেই থেমে থাকেনি। তাদের হত্যাকাণ্ডের প্রতিশোধ নিতে এগিয়ে গেছে, গোপনে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে যোগ দিয়ে শত্রুদের বাঙ্কারে মাইন পুঁতে তাদের ক্যাম্প উড়িয়ে দিয়েছে। উদ্দীপকের হোসেনের মাঝে এ ধরনের প্রতিক্রিয়া দেখ যায় না। তাই বলা যায়, উদ্দীপকের হোসেনের চেয়ে কাকতাড়ুয়া উপন্যাসের বুধা চরিত্র অধিক তাৎপর্যপূর্ণ।

প্রশ্ন ৫।

উদ্দীপক অংশ-১: বাবা-মাকে কবে হারিয়েছে জানে না শফি। দূরসম্পর্কের কিছু আত্মীয়ও হয়তো আছে বা নেই। তাই তো তার কোনো বন্ধন নেই, নেই কোনো বাধা। মাঠ-ঘাট, বন-বাদাড়, হাট-বাজার এই সবই যেন তার। যখন যা পায় তা খেয়েই কাটিয়ে দেয় সারাদিন।

উদ্দীপক অংশ-২: শফির কেউ নেই কিন্তু সে যেন সবার। আজিজ চাচার বাজারের ব্যাগ টানা, সাবিত্রী মাসির ফুল বাগানে একটু পানি দেওয়া, আমেনা চাচির জন্য একটু বাজার করে আনা সবার কাজ যেমন হাসি মুখে করে, সবাই ভালোও বাসে তাকে।

ক. ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসে বর্ণিত মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার কে?

খ. আমরা তিনজন নই, একজন।’- কথাটি দ্বারা কী বোঝানো হয়েছে?

গ. উদ্দীপক-২ অংশে শফির মধ্যে ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধা চরিত্রের কোন বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান? ব্যাখ্যা কর।

ঘ. উদ্দীপক-১ অংশের শফির মধ্যে যে বুধাকে পাই তার স্বরূপ বিশ্লেষণ কর।

৫নং প্রশ্নের উত্তর

উত্তরঃ- ক। ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসে বর্ণিত মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার হলেন শাহাবুদ্দিন।

উত্তরঃ- খ।  ‘আমরা তিনজন নই, একজন।’- কথাটি দ্বারা ঐক্যবদ্ধ শক্তিকে বোঝানো হয়েছে।

বুধাদের গ্রামে পাকিস্তানি সেনারা হানা দিলে প্রায় সবাই গ্রাম ছেড়ে পালায়। আহাদ মুন্সির মতো কিছু লোক শান্তি কমিটিতে নাম লিখিয়ে রাজাকার হয়। কিন্তু সাহসী যুবক আলি, মিঠু, শাহাবুদ্দিন, বুধা গ্রামেই থেকে যায় এবং গোপনে ট্রেনিং নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ শুরু করে। এদের মধ্যে বুধা আত্মভোলা কিশোর। সে মিঠু ও আলিকে বলে তাদের দুজনকে মনে হচ্ছে একজন। বুধার ঐক্যপূর্ণ মনোভাব বুঝতে পেরে তারা বলে দুজন মিলে একজন নই, আমরা তিনজন মিলে একজন। এর মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের ঐক্যবদ্ধ শক্তিকে বোঝানো হয়েছে।

উত্তরঃ- গ৷ উদ্দীপক-২ অংশে ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধা চরিত্রের পরোপকারী ও মানবিক বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান।

পৃথিবীতে একেকজন মানুষের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য একেক রকম। কেউ অন্যকে উপকার করে আনন্দ পায়, কেউবা অন্যের কাজ এগিয়ে দিয়ে তৃপ্তি পেতে চায়। তাদের মতো নিঃস্বার্থ মানুষের জন্যই সমাজ এখনও বসবাসযোগ্য।

উদ্দীপকের শফির কেউ নেই। কিন্তু সে সবার। অন্যের বাজারের ব্যাগ আনা, ফুলের বাগানে পানি দেওয়া, কারও বাজার করা ইত্যাদির মাধ্যমে অপরের মুখে হাসি ফোটাতে চায়। কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধাও এমন পরোপকারী বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। বুধাও অন্যের কাজ, করে তৃপ্তি পায়। ধান কাটা, গোবর কুড়ানো, বাজার করা, মোট বইয়ে দেওয়া ইত্যাদি ক্ষেত্রে সে গ্রামের মানুষকে সহযোগিতা করে। নিঃস্বার্থভাবে অন্যের কাজ করে দেওয়ার মধ্য দিয়ে বুধা চরিত্রের পরোপকারী দিকটি উদ্দীপকের শফি চরিত্রে প্রকাশ পেয়েছে।

উত্তরঃ- ঘ। উদ্দীপক-১ অংশের শফির মধ্যে যে বুধাকে পাই তার স্বরূপ বিশ্লেষণ করলে সেখানে ঘর-সংস্ৰহীন এক এতিম কিশোরের সন্ধান পাওয়া যায়।

আমাদের সমাজে এমন অনেকে আছে যাদের আপন বলতে কেউ নেই। যারা সব হারিয়ে উদাসীনতায় নিমজ্জিত হয়েছে। তারা জীবনের লক্ষ্য স্থির করতে না পেরে ছন্নছাড়ার মতো পথে পথে ঘুরে বেড়ায়। তাদের কোনো বন্ধন নেই।

উদ্দীপকের শফির মধ্যে এক ছন্নছাড়া কিশোরের সন্ধান পাওয়া যায়। তার কোনো বন্ধন নেই, কোনো বাধা নেই। মাঠ-ঘাটে, বনে-বাদাড়ে সে নির্বিকার ঘুরে বেড়ায়। সমস্ত গ্রামটিই যেন তার আপন। কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের বুধাকেও এমনই জীবনযাপন করতে দেখা যায়। এক রাতের কলেরায় বাবা-মা, ভাই-বোনদের হারিয়ে সে হয়ে পড়ে একা। দারিদ্রের কারণে চাচিও তার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে। সে যা পায় তাই খায়। যেখানে ইচ্ছে হয় ঘুমায়। মূলত সে ছন্নছাড়া এক আত্মভোলা কিশোর ।

উদ্দীপকের ১-অংশে শফির মধ্যে যে বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায় তার সঙ্গে বুধার ছন্নছাড়া ও উদাসী মনোভাবের পরিচয় পাওয়া যায়। বুধা কাকতাড়ুয়া’উপন্যাসের প্রধান চরিত্র। সে ছেলেবেলায় বাবা-মা, ভাই-বোনকে হারিয়ে ঘর-সংসারহীন এক এতিম আত্মীয়-পরিজনহীন হয়ে গ্রামময় ঘুরে বেড়ায়। সবার কাজ করে দেয়। কেউ খেতে দিলে খায় নয়তো শুধু পানি খেয়ে যেখানে সুযোগ পায় ঘুমিয়ে পড়ে। তাই বলা যায় যে, শফির মধ্যে যে বুধাকে পাওয়া যায় সে সংসার উদাসী এতিম কিশোর।

Download From Google Drive

Download

আরো পড়ুনঃ-

Download From Yandex

Download