বাংলা ব্যাকরণের আবেদন পত্র লেখার নিয়ম

0
101

আবেদন পত্র লেখার নিয়ম।।দরখাস্ত লেখার নিয়ম

আবেদন পত্র লেখার নিয়মাবলী

Application / দরখাস্ত লেখার নির্ধারিত কিছু নিয়ম রয়েছে যা কোন অবস্থাতেই বাদ দেওয়া সম্ভব নয়। আপনি যে কোন প্রকারের আবেদন লিখুন না কেন, আবেদন লেখার সময় নিম্নবর্ণিত নিয়মাবলী মেনে দরখাস্ত লেখা সম্পন্ন করতে হবে।

  • আবেদনের তারিখ (যে দিন আপনি আবেদন করবেন তার তারিখ)
  • প্রাপক/বরাবর (যার নিকট আবেদন করছেন তার নাম, পদবী ও ঠিকানা)।
  • আবেদনপত্রের বিষয়।
  • সম্ভাষণ/জনাব/স্যার/ম্যাডাম ইত্যাদি।
  • আবেদনের বিষয়ে গঠনমূলক বিস্তারিত বর্ণনা।
  • আবেদনকারীর নাম, ঠিকানা।

১. বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান ক্লাব গঠনের অনুমতি চেয়ে প্রধান শিক্ষকের নিকট আবেদনপত্র লেখ।

আবেদনের তারিখঃ- ……………

প্রধান শিক্ষক,

বিদ্যালয়ের নামঃ-……………………………….,

থানার নামঃ-……………..,জেলা নামঃ-………………. ।

বিষয়: বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান ক্লাব গঠনের অনুমতি প্রদানের জন্য আবেদন।

জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, আমরা আপনার স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রী। আসন্ন বিজ্ঞান সপ্তাহ উদ্যাপন নিয়ে আমাদের বিদ্যালয়ের  শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিশেষ উৎসাহ-উদ্বীপনা সৃষ্টি হয়েছে। তাই আমরা বিদ্যালয়ে একটি বিজ্ঞান ক্লাব গঠনের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছি। এতে বিজ্ঞান বিষয়ে আলোচনা, তথ্যাদি আদান-প্রদান এবং বিজ্ঞানচর্চার সুযোগ হবে। ছোট ছোট অনেক বিজ্ঞান প্রজেক্টও আমরা তৈরি করতে পারব।

অতএব, জনাবের নিকট বিনীত প্রার্থনা, আমাদের বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান ক্লাব গঠনের অনুমতি দিয়ে আমাদের উৎসাহিত করবেন।

নিবেদক-

বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীদের পক্ষে

শিক্ষার্থীর নাম……………….

২. তোমার এলাকার বন্যার্তদের জন্য সাহায্য চেয়ে জেলা প্রশাসকের নিকট একটি আবেদনপত্র লেখ।

আবেদনের তারিখঃ- ……………

জেলা প্রশাসক,

জেলার নাম-………………. ।

বিষয়: বন্যার্তদের জন্য সাহায্য প্রসঙ্গে।

জনাব,

জেলার নাম-………………. থানার নামঃ-………থানার অন্তর্গত গ্রামের নাম………. গ্রাম এখন পানিতে ভাসছে। বন্যার সর্বনাশা করাল গ্রাস থেকে রক্ষা পায় নি আশেপাশের অন্যান্য গ্রামগুলো। এবারের বন্যা স্মরণকালের ইতিহাসে সবচেয়ে বয়াবহ বন্যা। অসহায় বন্যার্ত মানুষের জীবন এখন নানামুখী দুঃখ-দুর্দশায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। প্রকৃতির নির্মম বৈরিতার মধ্যে দুর্গত মানবতা মানুষের সাহায্য কামনা করছে। সকলকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসতে আহ্বান জানাচ্ছি।

উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের অন্তত ষাটটি গ্রাম এখন সম্পূর্ণরূপে জলমগ্ন। দরিদ্র জনগোষ্ঠীর ঘরে ঘরে পানি প্রবেশ করেছে। ডুবে আছে তিন হাত পানির নিচে মানুষের বাসস্থান। ভেসে গেছে অসহায় কৃষকদের গরু-ছাগল, মাঠের ফসল ও সদ্য তোলা রবিশস্য। অনেকে ঘরের চালে, মাচার ওপর কিংবা উঁচু রাস্তার পাশে আশ্রয় নিয়েছে। তারা এখন অনাহারে-অর্ধহারে দিন কাটাচ্ছে। দুর্গত এলাকায় পানীয় জলের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। বিশুদ্ধ খাবার পানির অভাবে দেখা দিয়েছে কলেরা, টাইফয়েড, আমাশয়সহ নানারকম পানিবাহিত রোগ। বন্যার পানিতে সবকিছু তলিয়ে যাওয়ায় ইতেমধ্যেই খাদ্য সংকট শুরু হয়েছে। এ অবস্থায় বন্যাদুর্গত মানুষের জন্য পর্যাপ্ত খাদ্যের প্রয়োজন। স্থানীয় সরকার-দলীয় সংসদ সদস্য নিজ উদ্যোগে কিছু ত্রাণ কর্যক্রম চালু করেছে। তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই অপ্রতুল। এমতাবস্থায় বন্যা দুর্গত মানুষদের রক্ষাকল্পে জররী ভিত্তিতে শুষ্ক খাবার, তৈরি খাবার ও পানি এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা না করলে বন্যা দুর্গতদের এ মরণ ছোবল থেকে রক্ষা করা অসম্ভব হয়ে পড়বে।

অতএব, জনাবের নিকট বিনীত প্রার্থনা, উপর্যুক্ত বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে আশু প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে বাধিত করবেন।

নিবেদক-

এলাকাবাসীর পক্ষের

মো: মোহায়মিন

গ্রামের নামঃ-………….

পো:নামঃ-………….

উপজেলার নামঃ-………….

জেলার নামঃ-………….

৩. আর্সেনিকমুক্ত পানি সরবরাহের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্যে পৌরসভার চেয়ারম্যানের নিকট আবেদনপত্র লেখ।

আবেদনের তারিখঃ- ……………

পৌর মেয়র,

পৌরসভার নামঃ-…………..,

উপজেলার নামঃ-………….  জেলার নামঃ-………….

বিষয়ঃ- আর্সেনিকমুক্ত পানি সরবরাহ প্রসঙ্গে ।

জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, আমরা জেলার নামঃ-…………. জেলার পৌরসভার নামঃ-…………. পৌরসভার অধিবাসী। আপনি অবগত আছেন এ পৌরসভাটিতে প্রায় এক লক্ষ লোকের বসবাস; যা এর আয়তনের তুলনায় অনেক বেশি। বর্তমানে এ এলাকায় যে খাবার পানি ব্যবহৃত হয় তাতে আর্সেনিকের উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে। কিছু টিউবয়েলের পানি আর্সেনিকমুক্ত, তবে তাতে পানি সরবরাহ নেই বললেই চলে। তাছাড়া আর্সেনিকযুক্ত টিউবয়েলগুলো এখনো চিহ্নিতও করা হয় নি। এমতাবস্থায় এলাকার মানুষ মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়বে বলে আমরা আশঙ্কা করছি। কিন্তু বিকল্প হিসেবে এখনো এলাকায় বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয় নি। ফলে পানিহীন অবস্থায় সাধারণ মানুষ অনেক কষ্টে জীবনযাপন করছে।

অতএব, জনাবের নিকট বিনীত প্রার্থনা, আমাদের এলাকায় আর্সেনিকমুক্ত বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করে আমাদের বাধিত করবেন।

নিবেদক-

এলাকাবাসী

৪. বিদ্যালয়ে ক্যান্টিন স্থাপনের অনুরোধ জানিয়ে প্রধান শিক্ষকের নিকট আবেদনপত্র লেখ।

আবেদনের তারিখঃ- ……………

প্রধান শিক্ষক,

বিদ্যালয়ের নামঃ-……………………………….,

থানার নামঃ-……………..,জেলা নামঃ-………………. ।

বিষয়: বিদ্যালয়ে ক্যান্টিন স্থাপনের জন্যে আবেদন।

জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, আমরা আপনার স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রী। আমাদের বিদ্যালয় অত্র অঞ্চলের নামকরা একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এ বিদ্যালয়ে প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী নিয়মিত অধ্যনরত। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই যে, আমাদের বিদ্যালয়ে এখ নপর্যন্ত কোনো ক্যান্টিনের ব্যবষ্থা করা হয় নি। আমাদের ক্লাস সকাল আটটা থেকে বিকাল তিনটা পর্যন্ত হয়। তাছাড়া অনেক শিক্ষার্থী বেশ দূর থেকে আসে।তারা বিদ্যালয়ে দীর্ঘসময় অতিবাহিত করে। অথচ ওই সময়ে ক্ষুধার্ত থাকলেও কোনো কিছু কিনে খাওয়ার সুযোগ পায় না। আর বিদ্যালয়ের পাশে, রাস্তার ধারে যেসম দোকান আছে সেগুলোতে যেসব খাবার পাওয়া যায় তা অধিক মূল্যে ক্রয় করতে হয় এবং খাবারগুলো মানসম্মতও নয়। এরকম অব¯’ায় আমরা সব শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে ক্যান্টিন স্থাপনের আবেদন করছি।

অতএব, জনাবের নিকট বিনীত প্রার্থনা, আমাদের বিদ্যালয়ে ক্যান্টিন স্থাপনের বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে বাধিত করবেন।

নিবেদক-

বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীবৃন্দ

৫. বিনা বেতনে অধ্যয়নের জন্য প্রধান শিক্ষকের নিকট আবেদনপত্র লেখ।

আবেদনের তারিখঃ- ……………

প্রধান শিক্ষক,

বিদ্যালয়ের নামঃ-……………………………….,

থানার নামঃ-……………..,জেলা নামঃ-……………….

বিষয়: বিনা বেতনে অধ্যয়ন প্রসঙ্গে।

জনাব,

সবিনয় নিবেদন এই যে, আমি আপনার বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর একজন নিয়মিত ছাত্রী। গত বার্ষিক পরীক্ষায় আমি প্রথম স্থান অধিকার করে অষ্টম শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হয়েছি। আপনার সদয় অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, আমি অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারের সন্তান। আমাদের ছয় সদস্যের পরিবারে বাবাই একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তিনি একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের সামান্য বেতনভোগী কেরানি। আমার বড় তিন ভাইবোন কলেজে ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করছেন। কিন্তু বাবার স্বল্প আয়ে সংসার চালানোই যেখানে অত্যন্ত কষ্টকর সেখানে চার ভাইবোনের লেখাপড়ার খরচ বহন করা তাঁর পক্ষে কষ্টসাধ্য ব্যাপার হয়ে পড়েছে।

অতএব, বিনীত প্রার্থনা এই যে, অনুগ্রহপূর্বক মানবিক বিবেচনায় আমাকে আপনার বিদ্যালয়ে বিনা বেতনে অধ্যয়ন করার সুযোগ দান করে আমার উচ্চতর শিক্ষালাভের পথ সুগম করতে আপনার একান্ত মর্জি কামনা করছি।

নিবেদক-

শিক্ষার্থীর নাম……………….

শ্রেণি: অষ্টম

রোল নং ০১

শাখা: খ

৬. মনে কর, তোমার বাবা একটি ব্যাংকে চাকরি করেন। সম্পতি তোমার বাবার বদরি হয়েছে। তাই তোমাকেও তার সাথে যেতে হবে। এ জন্য স্কুলের প্রধান শিক্ষকের নিকট ছাড়পত্র চেয়ে আবেদনপত্র লেখ।

আবেদনের তারিখঃ- ……………

প্রধান শিক্ষক,

বিদ্যালয়ের নামঃ-……………………………….,

থানার নামঃ-……………..,জেলা নামঃ-……………….

বিষয়: বিদ্যালয় হতে ছাড়পত্র পাওযার জন্য আবেদনপত্র।

জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, আমি আপনার স্কুলের অষ্টম শ্রেণির একজন ছাত্র। আমার বাবা একজন ব্যাংক কর্মকর্তা। সম্প্রতি তাকে রাজশাহী শহরে বদলি করা হয়েছে। তাই আমার পরিবারের সবার সঙ্গে আমাকেও রাজশাহীতে যেতে হচ্ছে। সেখানে নতুন করে ভর্তির জন্য এই বিদ্যালয়ের ছাড়পত্র প্রয়োজন।

অতএব, জনাবের নিকট বিনীত প্রার্থনা, আমাকে বিদ্যালয় ত্যাগের ছাড়পত্র দিয়ে বাধিত করবেন।

নিবেদক-

শিক্ষার্থীর নাম……………….

শ্রেণি: অষ্টম

শাখা: খ

রোল: ০১

৭. শিক্ষা সফরে যাওয়ার অনুমতি চেয়ে প্রধান শিক্ষকের নিকট আবেদনপত্র লেখ

আবেদনের তারিখঃ- ……………

প্রধান শিক্ষক,

বিদ্যালয়ের নামঃ-……………………………….,

থানার নামঃ-……………..,জেলা নামঃ-……………….

বিষয়: শিক্ষাসফরে যাওয়ার জন্যে প্রয়োজনীয় অর্থ ও অনুমতির জন্য আবেদন।

জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, আমরা আপনার স্কুলের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রী। সামনের মাসের প্রথম সপ্তাহে আমরা শিক্ষাসফরে যাওয়ার  মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিয়েছি। পাঠ্যসূচিভুক্ত তত্ত্বীয় জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি ব্যবহারিক জ্ঞান অর্জনে শিক্ষাসফরের কোনো বিকল্প নেই, সে বিষয়ে সম্মানিত শিক্ষকমণ্ডলী প্রায়ই আমাদের অবগত করেন। বাস্তবিকই শিক্ষাসফর শিক্ষার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়। যে পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত, সে বিষয়টা পড়ার পাশাপাশি যদি বাস্তবে তার সঙ্গে পরিচিত হওয়া যায় তবে তা যে জ্ঞান লাভে আরও বেশি ফলপ্রসূ হবে, সে ব্যাপারে আপনি আমাদের চেয়েও ভাল জানেন। তাই আপনার অনুমতি সাপেক্ষে আমরা বগুড়ার মহাস্থানগড়ে শিক্ষাসফরে যেতে ইচ্ছুক। মহাস্থানগড় সম্পর্কে আমরা পাঠ্যসূচিতে পড়েছি, এবার এ ঐতিহাসিক স্থানটি বাস্তবে দেখতে চাই।

অতএব, জনাবের নিকট বিনীত প্রার্থনা, আমাদেরকে শিক্ষাসফরের অনুমতি ও প্রয়োজনীয় আর্থিক বরাদ্দ প্রদানের মাধ্যমে বাধিত করবেন।

নিবেদক-

বিদ্যালয়ের নামঃ-………………  বিদ্যালয়ের পক্ষে

শিক্ষার্থীর নাম……………….

শ্রেণি: অষ্টম

রোল নং ০১

শাখা: খ

৮. ছাত্রকল্যাণ দরিদ্র তহবিল থেকে আর্থিক সাহায্য চেয়ে প্রধান শিক্ষকের নিকট আবেদনপত্র লেখ।

আবেদনের তারিখঃ- ……………

প্রধান শিক্ষক,

বিদ্যালয়ের নামঃ-……………………………….,

থানার নামঃ-……………..,জেলা নামঃ-……………….

বিষয়: ছাত্রকল্যাণ তহবিল থেকে আর্থিক সাহায্যের আবেদন।

জনাব,

সবিনয় নিবেদন এই যে, আমি আপনার বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর একজন নিয়মিত ছাত্রী। গত বার্ষিক পরীক্ষায় আমি প্রথম স্থান অধিকার করে অষ্টম শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হয়েছি। আপনার সদয় অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, আমি অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারের সন্তান। আমাদের ছয় সদস্যের পরিবারে বাবাই একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তিনি একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের সামান্য বেতনভোগী কেরানি। পরিবারের ভরণপোষণ ছাড়াও আমাদের তিন ভাইয়ের লেখাপড়ার খরচ তাঁকেই চালাতে হচ্ছে। কয়েকদিন আগে হঠাৎ এক দুরারোগ্য ব্যাধিতে আমার বাবা আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। এমতবস্থায় এ বছর নতুন বই-পুস্তক ক্রয় করা আমার পক্ষে দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে।

অতএব, জনাবের নিকট আমার আকুল আবদেন এই যে, নতুন শিক্ষা বছরে বই পুস্তক ও খাতাপত্র কেনার জন্য আমাকে বিদ্যালয়ের দরিদ্র তহবিল হতে এককালীন কিছু অর্থ অনুদানের ব্যবস্থা করে বাধিত করবেন।

নিবেদক-

শিক্ষার্থীর নাম……………….

শ্রেণি: অষ্টম

রোল নং ০১

শাখা: খ

আরো পড়ুনঃ-

Download From Google Drive

Download

Download From Yandex

Download

👀 প্রয়োজনীয় মূর্হুতে 🔍খুঁজে পেতে শেয়ার করে রাখুন.! আপনার প্রিয় মানুষটিকে “send as message”এর মাধ্যমে শেয়ার করুন। হয়তো এই গুলো তার অনেক কাজে লাগবে এবং উপকারে আসবে।