ভূগোল বায়ুমন্ডল অধ্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ একটি হ্যান্ডনোট

0
69

ভূগোল বায়ুমন্ডল  অধ্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ

একটি হ্যান্ডনোট

বায়ুমণ্ডল – অতিসংক্ষিপ্ত উত্তরভিত্তিক প্রশ্নোত্তর

1. কীভাবে বায়ু প্রবাহের নামকরণ করা হয়?
উত্তর : বায়ু যেদিক থেকে আসে সেই দিক অনুসারে বায়ু প্রবাহের নামকরণ করা হয়।
2. হ্যারিকেন কী?
উত্তর : পশ্চিম ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জের ক্রান্তীয় ঘূর্ণর্বাত।
3. আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ প্রান্তে ক্রান্তীয় ঘূর্ণবাতকে কী বলে?
উত্তর : টর্নেডাে।
4. বায়ুর আপেক্ষিক আদ্রর্তা 100% হলে সেই বায়ুকে কী বলে?
উত্তর : পরিপৃক্ত বায়ু।
5. নিরক্ষীয় অঞলে কী জাতীয় বৃষ্টি হয়?
উত্তর : পরিচলন বৃষ্টি।
6. কোন মৌসুমি বাতাসের দ্বারা বৃষ্টি হয় না?
উত্তর : শীতকালীন মৌসুমি বাতাসের দ্বারা বৃষ্টি হয় না।
7. বৃষ্টিমাপক যন্ত্রের নাম কী?
উত্তর : বৃষ্টিমাপক যন্ত্রের নাম রেনগজ বা বৃষ্টিমাপক যন্ত্র।
৪. বায়ুতে ভাসমান জলীয়বাষ্প যখন শীতল ভূপৃষ্ঠের সংস্পর্শে এসে জলকণায় পরিণত হয়, তাকে কী বলে?
উত্তর : শিশির।
9. কোন বায়ু স্থলবায়ু ও সমুদ্রবায়ুর ব্যাপক সংস্করণ ?
উত্তর : মৌসুমি বায়ু।
10. লু’ বাতাস কোন্ সময় প্রবাহিত হয় ?
উত্তর : ‘লু’ বাতাস গ্রীষ্মকালে প্রবাহিত হয়।
11. একটি স্থানীয় বায়ুর নাম করাে।
উত্তর : ‘লু।
12. বায়ুর আদ্রর্তা কোন যন্ত্রের সাহায্যে নিরূপণ করা হয়?
উত্তর : শুষ্ক ও আর্দ্র কুন্ডযুক্ত হাইগ্রোমিটারের সাহায্যে।

13. সিসিলিতে প্রবাহিত এক ধরনের উন্ন স্থানীয় বায়ু কী নামে পরিচিত?
উত্তর : সিরােক্কো।

বায়ুমণ্ডল – সংক্ষিপ্ত উত্তরভিত্তিক প্রশ্নোত্তর

1. ‘অ্যারােসল’ কী?
উত্তর : অ্যারােসেল : ‘অ্যারাে’ শব্দের অর্থ বাতাস, ‘সল’ শব্দের অর্থ ভাসমান ধূলিকণা। বায়ুতে ভাসমান সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম কঠিন উপাদানকে (ধূলিকণা, লবণকণা, কয়লা গুঁড়াে, কাঠের গুঁড়াে প্রভৃতি) বলা হয় অ্যারােসল।
2. বায়ুমণ্ডলে ধূলিকণার গুরুত্ব আলােচনা করাে।
উত্তর : ধূলিকণার গুরুত্বের কারণগুলি হল—(i) ভাসমান ধূলিকণাকে কেন্দ্র করে জলীয় বাষ্প ঘনীভূত হয় এবং তার ফলে মেঘ, কুয়াশা, তুহিন, বৃষ্টিপাত প্রভৃতির সৃষ্টি হয়। (i) বায়ুতে ভাসমান ধূলিকণা সরাসরি সূর্যরশ্মি প্রতিফলিত ও বিচ্ছুরিত হয়ে বর্ণচ্ছটার সৃষ্টি করে। (iii) বায়ুমণ্ডলে ধূলিকণার আধিক্য বায়ুমণ্ডলকে অস্বচ্ছ করে। তােলে অর্থাৎ দৃষ্টি স্বচ্ছতা কমায় এবং পৃথিবীর গড় উত্তাপ বৃদ্ধি করে
3. Lapse rate’ বা ‘উয়তা হ্রাসের হার’ বলতে কী বােঝাে?
উত্তর : সাধারণভাবে উচ্চতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে উয়তা হ্রাস পায়। বায়ুমণ্ডলের সর্বনিম্ন স্তরে অর্থাৎ ট্রপােস্ফিয়ার স্তরে ভূ-পৃষ্ঠ থেকে ট্রপােপজ পর্যন্ত উচ্চতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে উয়তা হ্রাস পেতে থাকে। সাধারণত প্রতি 1000 মিটার উচ্চতায় 6:45°C (6.5°C) হারে উষ্মতা হ্রাস পেতে থাকে। এইভাবে উয়তা হ্রাস পাওয়ার বায়ুর স্বাভাবিক উম্লতা হ্রাস হার বলে।
4. ট্রপােপজ কী?
উত্তর : টুপােপজ কথাটির আক্ষরিক অর্থ ‘স্তন্ধ যে স্তর’, অর্থাৎ ট্রপােস্ফিয়ার ও স্ট্রাটোস্ফিয়ারের মধ্যবর্তী 2-3 কিমি বিস্তৃত অঞলে বায়ুপ্রবাহ ও উয়তার পরিবর্তন তেমন হয় না তাই একে ট্রলােপজ বলে। এখানে বায়ুর গড় তাপমাত্রা থাকে প্রায় –58°C থেকে –60°c।
5. অ্যাপলটন স্তর কাকে বলে?
উত্তর : ভূ-পৃষ্ঠের প্রায় 300 কিমি ওপরে আয়নােস্ফিয়ারের একটি স্তরকে অ্যাপলটন স্তর বলে। এই স্তরে প্রতিফলিত হয়ে ভূ-পৃষ্ঠে উৎপন্ন হ্রস্ব তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের বেতার তরঙ্গ ভূ-পৃষ্ঠে আবার ফিরে আসে বলে ভূ-পৃষ্ঠে দূরবর্তী এবং অতি দূরবর্তী অঞ্জলগুলি মধ্যে বেতার যােগাযােগ সম্ভব।
6. ফেরেলসূত্রটি কী?
উত্তর : পৃথিবীর আবর্তনজনিত বলের প্রভাবে বায়ু সরাসরি উচ্চচাপ থেকে নিম্নচাপের দিকে প্রবাহিত হতে পারে না। ফলে বায়ু উত্তর গােলার্ধে ডানদিকে ও দক্ষিণ গােলার্ধে বামদিকে বেঁকে প্রবাহিত হয়। বায়ু প্রবাহের দিক সংক্রান্ত এই নিয়মটি বিজ্ঞানী উইলিয়াম ফেরেল আবিষ্কার করেন। তার নামানুসারে এটি ‘ফেরেল সূত্র নামে পরিচিত।
7. বাইস ব্যালস সূত্র কী?
উত্তর : বায়ুচাপের অবস্থানের সঙ্গে বায়ুপ্রবাহের সম্পর্কে সম্বন্ধে 1857 খ্রিস্টাব্দে ডাচ আবহবিদ বাইস ব্যালট একটি সূত্র উদ্ভাবন করেন। সূত্রটি হল উত্তর গােলার্ধে বায়ুর গতির দিকে পিছন ফিরে দাঁড়ালে ডানদিকের তুলনায় বামদিকের বায়ু চাপ কম অনুভূত হয় এবং দক্ষিণ গােলার্ধে বামদিকের তুলনায় ডানদিকে বায়ু চাপ কম অনুভূত হয়। এই সূত্রটি বাইসব্যালট সূত্র নামে পরিচিত।
৪. কোরিওলিস শক্তি বা বল কী?
উত্তর : পৃথিবীর আবর্তন গতির ফলে বায়ুপ্রবাহের ওপর যে শক্তি প্রযুক্ত হয় তাকে কোরিওলিস বল বলে। 1835 খ্রিস্টাব্দে ফরাসি বিজ্ঞানী ড. De. Coriolis এই শক্তি প্রথম আবিষ্কার করেন।
9. ‘গর্জনশীল চল্লিশা’ কী?
উত্তর : দক্ষিণ গােলার্ধে স্থলভাগের তুলনায় জলভাগ বেশি থাকায় পশ্চিমাবায়ু বাধাহীনভাবে প্রবলবেগে প্রবাহিত হয়। 40° দক্ষিণ অক্ষরেখা বরাবর পশ্চিম থেকে পূর্বে এই প্রবল পশ্চিমা বায়ুপ্রবাহকে ‘গর্জনশীল চল্লিশা’ বলে।
10. প্রতীপ ঘূর্ণবাত কাকে বলে?
উত্তর : হিমমণ্ডল বা নাতিশীতােষ মণ্ডলের কোনাে স্থানে অধিক শীতলতার জন্য প্রবল উচ্চচাপের সৃষ্টি হলে তখন ওই উচ্চচাপযুক্ত অঞ্চল থেকে শুষ্ক ও শীতল বায়ু কুণ্ডলী আকারে ছড়িয়ে পড়ে। একে প্রতীপ ঘূর্ণবাত বলে।
11. রসবি তরঙ্গ কী?
উত্তর : ঊর্ধ্ব ট্রপােস্ফিয়ারে বায়ুচাপের অবক্ৰমজনিত শক্তি ও কোরিওলিস শক্তির পরিমাণ সমান এবং তারা পরস্পরের বিপরীতে ক্রিয়া করে। ফলে উর্ধ বায়ুতে সমচাপ রেখার সঙ্গে সমান্তরালভাবে জিওট্রোফিক বায়ু প্রবাহিত হয়। C. G. Rossby- 1930 এর দশকে গাণিতিক পদ্ধতিতে এই ধরনের তরঙ্গায়িত বায়ুপ্রবাহের উপস্থিতি প্রমাণ করেছিলেন। তাই এই তরঙ্গায়িত প্রবাহকে ‘রসবি তরঙ্গা’ বলা। হয়।
12. হ্যাডলী সেল কী?
উত্তর : নিরক্ষীয় অঞ্চলে নিম্নচাপের দরুণ উর্ধ্বগামী বায়ু পৃথিবীর আবর্তন গতির ফলে ওই বায় ওপরে উঠে শীতল হয়ে উত্তর ও দক্ষিণে ছিটকে যায় এবং তা ক্রমশ সংকুচিত ও ভারী হয়ে কর্কটক্রান্তি ও মকরক্রান্তি অঞ্চলে নেমে আসে, বায়ুর এই চক্রাকার আবর্তনকে হ্যাডলী কক্ষ বলা হয়।
13. সৌর ধ্রুবক (Solar Constant) কাকে বলে?
উত্তর : সূর্য থেকে পৃথিবী ক্রমাগত ক্ষুদ্র তরঙ্গরূপে সূর্যের তাপীয় ফল লাভ করে চলেছে। তবে সূর্য থেকে পৃথিবী প্রতিদিনি ও প্রতিবছর প্রায় কেই পরিমাণ সৌরতাপীয় ফল লাভ করে। একেই সৌর ধ্রুবক বলা হয়।
14. ITCz কী?
উত্তর : নিরক্ষরেখার উভয়দিকে 5 থেকে 10° অক্ষরেখার মধ্যে যে নিম্নচাপদ্রোণী আছে সেখানে উত্তর পূর্ব আয়নবায়ু এবং দক্ষিণপূর্ব আয়নবায়ু পরস্পর এসে মিলিত হয়। তাই এই মিলন অঞ্চলকে অন্তক্রান্তীয় অভিসৃতি অঞ্চল বা Intertropical Convergence Zone (ITCz) বলে। এই অঞ্চলে বায়ুচাপীয় ঢাল প্রায় না থাকায়। অনুভূমিক বায়ুপ্রবাহ নেই। তাই এই অঙুলকে শান্তবলয় বলা হয়।
15. লীনাপ কী?
উত্তর : যে তাপ পদার্থের উন্নতার পরিবর্তন না ঘটিয়ে পদার্থের অবস্থার (যেমন—কঠিন থেকে তরলে এবং তরল থেকে গ্যাসীয় অথবা গ্যাসীয় থেকে তরল এবং তরল থেকে কঠিন ইত্যাদি) পরিবর্তন ঘটায় তাকে লীনতাপ বলে।
16. চরম আদ্রর্তা কাকে বলে?
উত্তর : কোনাে নির্দিষ্ট উয়তায় নির্দিষ্ট আয়তনের বায়ুতে যে পরিমাণ জলীয় বাষ্প বর্তমান। থাকে তাকে ওই বায়ুর নিরপেক্ষ বা চরম আদ্রর্তা বলা হয়। নিরপেক্ষ বা চরম আদ্রর্তার পরিমাণ সাধারণত গ্রামে প্রকাশ করা হয়। যেমন—10 গ্রাম/ঘনসেমি।
17. শিলাবৃষ্টি কী?
উত্তর : নাতিশীতােয় মণ্ডলে গ্রীষ্মকালে জলকণা ও বরকণা একত্রে অধঃক্ষেপন রূপে পতিত হলে তাকে শিলাবৃষ্টি বলে। ঊর্ধ্বমুখী প্রবলবায়ুর প্রভাবে জলকণাগুলি অনেক উঁচুতে উঠে গিয়ে শীতল হয়ে বরফকণায় পরিণত হয়। অবশেষে ধীরে ধীরে আয়তনে বেড়ে গিয়ে এই কণাগুলি বৃষ্টির সাথে ঝরে পড়ে।
18. ‘ঘূর্ণবাতের চক্ষু-কাকে বলে?
উত্তর : কুণ্ডলাকারে ঘূর্ণমান ক্রান্তীয় ঘূর্ণর্বাতের কেন্দ্ৰাঞ্চলটিতে বায়ু শান্ত থাকে এবং ঘূর্ণবাতের উপরিভাগ পর্যন্ত শান্ত বায়ুর একটি স্তম্ভ রচিত হয়। একে ঘূর্ণবাতের চক্ষু বলা হয়। এই অলটি প্রায়বৃত্তাকার এবং এর ব্যাস 20-40 কিমি। এখানে বায়ু অত্যন্ত হালকা ও পরিবর্তনশীল।
19. টর্নেডাে কী?
উত্তর : টর্নেডাে হল অতি ক্ষুদ্র কিন্তু অতি মারাত্মক শক্তিশালী ক্রান্তীয় ঘূর্ণর্বাত। এদের আকৃতি অনেকটা চোঙের মতাে এবং ভূ-পৃষ্ঠের ওপর এদের ব্যাস 100-500 মিটার। এই ঝড়ের কেন্দ্রে বায়ুচাপ 900mb এর নীচে নেমে যায়। আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের রকি পর্বতের পূর্বদিকে এই ঝড় বেশি হয়।।
20. আশ্বিনের ঝড় কী?
উত্তর : শরৎকালে ভারতের উপকূল অঞ্চলে মাঝে মাঝে ঘূর্ণিঝড়সহ বৃষ্টিপাত হয়। ঝড়ের তাণ্ডবে জীবনহানি ও ধনসম্পত্তির বিপুল ক্ষতি হয়। পশ্চিমবঙ্গে প্রধানত ‘আশ্বিন মাসে এই ধরনের ঘূর্ণিঝড় হয় বলে একে ‘আশ্বিনের ঝড়’ বলা হয়।
21. মৌসুমি বিস্ফোরণ কী?
উত্তর : ক্রান্তীয় পুবালি জেটের প্রভাবে মধ্যভারত ও বঙ্গোপসাগরে গ্রীষ্মকালে সৃষ্ট একাধিক নিম্নচাপজনিত গােলযােগকে কেন্দ্র করে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমিবায়ু ত্বরান্বিত হয়। এবং বজ্রবিদ্যুৎসহ আকস্মিকভাবে দক্ষিণ এশিয়ার বিস্তীর্ণ অঞলে প্রচুর বৃষ্টিপাত ঘটায়। একেই ‘মৌসুমি বিস্ফোরণ’ বা Burst of Monsoon বলে।

PDF Detail  

Titleবায়ু মন্ডল
Author
Size1 MB
Number of Pages8
CategoriesPDF Download
Downloading status FREE 

সাইজঃ- 1 MB

পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ 8

বই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে অনলাইন লাইভ প্রিভিউ দেখে নিন তারপর সিদ্ধান্ত নিন ডাউনলোড করবেন কিনা।

Live Preview এখান থেকে Scroll করে দেখতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ-

Download From Google Drive

Download

Download From Yandex

Download

👀 প্রয়োজনীয় মূর্হুতে 🔍খুঁজে পেতে শেয়ার করে রাখুন.! আপনার প্রিয় মানুষটিকে “send as message”এর মাধ্যমে শেয়ার করুন। হয়তো এই গুলো তার অনেক কাজে লাগবে এবং উপকারে আসবে।