এনজিও নিয়োগ পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন উত্তর পিডিএফ ডাউনলোড

0
87

এনজিও নিয়োগ পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য

গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন উত্তর

যেকোনো NGO তে পরীক্ষা দিতে যাবার পূর্বে এই প্রশ্নগুলো পড়ে যাবেন│

NGO Exam Question Pattern And Suggestion (100% Working)

সাধারণত এন জি ও প্রতিষ্ঠান তাদের নিজেদের আভ্যন্তরীণ প্রক্রিয়ায় পরীক্ষা নিয়ে থাকে । তবে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠান হিসাববিজ্ঞান এর ওপর ভিত্তি করে প্রশ্ন দিয়ে থাকে এছাড়াও কিছু কিছু এন জি ও প্রতিষ্ঠানে হিসাববিজ্ঞানের পাশাপাশি সাধারণ জ্ঞান ইংরেজি ইত্যাদি বিষয়গুলো দিতে পারে , তবে হিসাববিজ্ঞানের বেসিক বিষয় গুলো ভালো করে জেনে যেতে হবে। কারণ হিসাববিজ্ঞানের বেসিক থেকে ইন্টারভিউ প্রশ্ন করা হবে সেইসাথে এই একই প্রশ্ন আপনার লিখিত পরীক্ষাতেও দেওয়া হবে ।

হিসাববিজ্ঞানের বেসিক বলতে কী বোঝায় ?

নবম দশম শ্রেণীর হিসাব বিজ্ঞান এবং এইচএসসি হিসাববিজ্ঞান ভালো করে দেখে যেতে হবে –

যেমন:

✓ জাবেদা কি ?

উঃ জাবেদা হচ্ছে হিসাবচক্রের প্রথম স্তর। হিসাব নিকাশের যে প্রাথমিক বইতে দৈনন্দিন সংঘটিত লেনদেনসমুহ চিহ্নিত করে ডেবিট ক্রেডিটে বিশ্লেষণ করে তারিখের ক্রমানুসারে প্রতিদিন লিপিবদ্ধ করা হয় তাকে জাবেদা বলে।

✓ হিসাব সমীকরণ বিবরণী কি ?

উঃ যে সমীকরণের মাধ্যমে ব্যবসায়ের আর্থিক অবস্থার উপাদান সমূহের বা সম্পত্তি, দায়, মালিকানা স্বত্তের মধ্যকার সম্পর্ক প্রকাশ করা হয় তাকে হিসাব সমীকরণ বলে। হিসাব সমীকরণ কে উদ্ভৃত্ত পত্র সমীকরণও বলে। হিসাব সমীকরণের মূলভিত্তি হলও দুতরফা দাখিলা পদ্ধতি। প্রতিষ্ঠানের আর্থিক অবস্থার বীজগণিতক প্রকাশকে হিসাব সমীকরণ বলে।

✓ প্রাপ্তি ও প্রদান হিসাব কি ?

উত্তর: কোন নির্দিষ্ট সময়ে অব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন প্রকার নগদ আদান-প্রদান সংক্রান্ত লেনদেনসমূহ সাজিয়ে যে হিসাব প্রস্তুত করা হয় তাকে প্রাপ্তি ও প্রদান হিসাব বলে ।

Rejected Cheque- প্রত্যাথ্যাত চেক

Deposit in Transit- ট্রানজিটে জমা

Interest Earned on Deposit- ব্যাংক জমার সুদ (আয়)

Outstanding Cheque- ইস্যুকৃত চেক, যা এখনো ব্যাংকে উপস্থাপিত হয়নি (বকেয়া চেক)

Interest Payable on Bank Overdraft- ব্যাংক জমাতিরিক্তের সুদ (ব্যয়)

Not Sufficient Fund- এনএসই চেক, ব্যাংক তহবিলে পর্যাপ্ত পরিমাণ টাকা না থাকা

✓ রেওয়ামিল কি ?

উঃ  রেওয়ামিল হচ্ছে এমন একটি তালিকা যেখানে আয়,ব্যয়,সম্পদ ও দায় জাতীয় হিসাবগুলোর জেরগুলোকে ডেবিট এবং ক্রেডিট অনুযায়ী সাজিয়ে হিসাবের শুদ্ধতা যাচাই করা হয়। সকল ব্যক্তিবাচক ও সম্পত্তিবাচক হিসাব এতে আনা হয়। জাবেদা ও খতিয়ানের লেনদেনগুলো সঠিকভাবে লিপিবদ্ধ হয়েছে কিনা তা রেওয়ামিলের মাধ্যমে জানা যায়।

✓ খতিয়ান কাকে বলে ?

✓ হিসাব বিজ্ঞানের স্বর্ণ সূত্র কি ?

✓ হিসাববিজ্ঞানের জনক কে ?

উত্তর: ইতালিয় গণিতবিদ লুকাপ্যাসিওলি ১৪৯৪ সালে সুম্মা ডি এরিথমেটিকা জিওমেট্রিয়া প্রপোরশনিয়েট প্রপোরশনালিটা নামক বিখ্যাত গ্রন্থের মাধ্যমে হিসাববিজ্ঞানের উদ্ভাবন করেন মনে । লুকাপ্যাসিওলি হিসাববিজ্ঞানের জনক হিসেবে পরিচিত ।

✓ আর্থিক বিবরণী কি ?

✓ ব্যাংক সমন্বয় বিবরণী কি ? ইহা কে প্রস্তুত করে ?

উত্তরঃ- আমানতকারীর নগদান বইয়ের ব্যাংক কলাম এবং ব্যাংক প্রদত্ত পাশ বইয়ের উদ্বৃত্তের মধ্যে প্রায়ই পার্থক্য দেখা যায়। এ পার্থক্যের কারণ বের করে নগদাই বই ও পাশ বইয়ের উদ্বৃত্তের সমন্বয় সাধরেন জন্য আমানতকারী একটি নির্দিষ্ট তারিখে যে বিবরণী প্রস্তুত করে, তাকেই ব্যাংক সমন্বয় বিবরণী বলে।

✓ হিসাব কাকে বলে ?

✓ হিসাব কত প্রকার কি কি ?

✓ চেক কাকে বলে ?

প্রতিষ্ঠানভেদে কিছু কিছু এন জি ও লিখিত পরীক্ষার জন্য হিসাববিজ্ঞানের অংক করতে দেয় । চিন্তা করার কিছু নেই যেগুলো দিবে আপনি পারবেন তবে এজন্য পরীক্ষার আগের দিন একটু দেখে যেতে হবে । হিসাববিজ্ঞান বলে কথা চর্চা থাকলে অংক করতে ১ মিনিট লাগে আর চর্চা না থাকলে অকের ছক’ও বানাতে পারবেন না ।

কি ধরনের অংক করতে দিতে পারে ?

কঠিন কিছু দেয় না এতটুকু নিশ্চিত থাকতে পারেন তবে চর্চা না থাকলে সহজ অংকটাও কঠিন হয়ে যাবে । সাধারণত জাবেদা , সমন্বয় জাবেদা, প্রাপ্তি-প্রদান হিসাব, এই ধরনে অংক গুলো ছোটো আকারে দিয়ে থাকে ।

হিসাববিজ্ঞানের কিছু সংক্ষিপ্ত এবং গুরুত্বপূর্ন প্রশ্ন ও উত্তর –

হিসাব বিজ্ঞানের স্বর্ণ সূত্র কি ?

উত্তরঃ-  লেনদেনকে হিসাবের বইতে লিপিবদ্ধ করার জন্য দু’তরফা দাখিলা পদ্ধতি অনুসারে নিয়ম বা সূত্র অনুযায়ী ডেবিট এবং ক্রেডিট করতে হয় । ডেবিট এবং ক্রেডিট করার প্রাচীনতম নিয়মকে স্বর্ণসূত্র (Golden Rule) বলে ।

১. ব্যক্তিবাচক হিসাবঃ

গ্রহীতা ⟶ ডেবিট

দাতা ⟶ ক্রেডিট

২. সম্পত্তিবাচক হিসাবঃ

সম্পত্তি আসলে ⟶ ডেবিট

সম্পত্তি গেলে / কমলে ⟶ ক্রেডিট

৩. আয়–ব্যয় বাচক বা নামিক হিসাবঃ

সকল খরচ বা ক্ষতি ⟶ ডেবিট

সকল আয় বা লাভ ⟶ ক্রেডিট

ডেবিট ও ক্রেডিট নির্ণয়ের আধুনিক পদ্ধতি

সম্পদ হিসাবঃ   সম্পত্তি সাধারণত ডেবিট ব্যালেন্স (জের) নির্দেশ করে।

সম্পদ বৃদ্ধি পেলে . . . . . . . . . .  . . ডেবিট

সম্পদ হ্রাস পেলে . . . . . . . . . .  . . ক্রেডিট

দায় হিসাবঃ      দায় সাধারণত ক্রেডিট ব্যালেন্স ( জের) নির্দেশ করে।

দায় হ্রাস পেলে . . . . . . . . . .  . . ডেবিট

দায় বৃদ্ধি পেলে . . . . . . . . . .  . . ক্রেডিট

স্বত্বাধিকার হিসাবঃ স্বত্বাধিকার সাধারনত ক্রেডিট ব্যালেন্স (জের) নির্দেশ করে।

স্বত্বাধিকার  হ্রাস পেলে . . . . . . . . . .  . . ডেবিট

স্বত্বাধিকার বৃদ্ধি পেলে . . . . . . . . . .  . . ক্রেডিট

আয় হিসাবঃ     আয় সাধারণত ক্রেডিট ব্যালেন্স ( জের) নির্দেশ করে।

আয় হ্রাস পেলে . . . . . . . . . .  . . ডেবিট

আয় বৃদ্ধি পেলে . . . . . . . . . .  . . ক্রেডিট

ব্যয় হিসাবঃ         ব্যয় সাধারণত ডেবিট ব্যালেন্স (জের) নির্দেশ করে।

ব্যয় বৃদ্ধি পেলে . . . . . . . . . .  . . ডেবিট

ব্যয় হ্রাস পেলে . . . . . . . . . .  . . ক্রেডিট

আধুনিক হিসাববিজ্ঞানের জনক ⟶ লুকা প্যাসিওলি (Luca Pacioli)

লুকা প্যাসিওলির পুরো নাম ফ্রা লুকা বার্তোলোমিয়ো দা প্যাসিওলি। তিনি একজন ইতালীয় নাগরিক। লুকা প্যাসিওলি ছিলেন লিওনার্দো দা ভিঞ্চি’র একজন নিকটতম বন্ধু ও গৃহশিক্ষক এবং ইতালীয় নাবিক ক্রিস্টোফার কলম্বাস এর সমসাময়িক। তিনি ছিলেন একাধারে গণিতবিদ ও ধর্মযাজক। Accounting” যার উৎপত্তি ল্যাটিন শব্দ “Calculi” থেকে ।

হিসাববিজ্ঞানের সংজ্ঞাঃ Weygandt, Kieso, Kimmel- এর মতে” হিসাববিজ্ঞান হল একাধারে একটি সেবা প্রদানমূলক কার্যক্রম, একটি বর্ণনা এবং সর্বোপরি একটি তথ্যব্যবস্থা যা একটি প্রতিষ্ঠানের আর্থিক লেনদেনসমূহ পরিমাপ, লিপিবদ্ধ, শ্রেণিবদ্ধ এবং সংক্ষিপ্তকরনের মাধ্যমে ফলাফল ও চিত্র প্রদান করে এবং তার সাথে জড়িত আগ্রহী বিভিন্ন পক্ষ তথা ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষকে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহনে তাৎপর্যপূর্ণ তথ্য প্রদান করে।

American Institute of Certified Public Accountants (AICPA)- এর মতে, “আর্থিক বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন লেনদেন ও ঘটনা সমূহকে তাৎপর্যপূর্ণভাবে এবং অর্থের পরিমাণে লিপিবদ্ধকরণ, শ্রেণিবদ্ধকরন, সংক্ষিপ্তকরণ ও তার ফলাফল বিশ্লেষণ করার কৌশলকে হিসাব বিজ্ঞান বলে।”

Financial Accounting Standard Board (FASB) – এর প্রদত্ত সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, “ হিসাববিজ্ঞান হল আর্থিক তথ্যের বিভিন্ন ব্যবহারকারীদের নিকট একটি প্রতিষ্ঠানের অথবা ইউনিটের আর্থিক কার্যাবলির পরিমাপ এবং প্রতিবেদনের কাজে ব্যবহৃত পক্রিয়া ।

হিসাববিজ্ঞান তথ্যের ব্যবহারকারী ২ ধরণেরঃ

অভ্যন্তরীণ ব্যবহারকারী: যারা সংশ্লিষ্ট ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা ও মালিকানার আওতাভুক্ত তাদেরকে অভ্যন্তরীণ ব্যবহারকারী বলা হয় । যেমনঃ মালিক, কর্মচারী, ব্যবস্থাপকগণ, কম্পানির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, অর্থ পরিচালক ।

বাহ্যিক ব্যবহারকারী: যারা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত কিন্তু মালিকানা এবং ব্যবস্থাপনার অংশ নন তাদেরকে বাহ্যিক ব্যবহারকারী বলা হয়; যেমনঃ পাওনাদার,বিনিয়োগকারী, ভোক্তা, গবেষক, কোম্পানি নিবন্ধক, কর কর্তৃপক্ষ, সরকার, নিরীক্ষক ইত্যাদি ।

হিসাব সমীকরণঃ A = L + E

Assets (A) = Liabilities (L) + Owner’s Equity (OE)

সম্পদ = দায় + মালিকানা স্বত্ব

Owner’s Equity (OE) মালিকানা স্বত্ব = Capital (C) + Revenue (R) + Additional Capital (A) – Expense (E) – Drawings (D)

হিসাব সমীকরণটি সম্প্রসারিত করে লেখা যায়ঃ A = L + (C + R + A – E – D)

Assets – সম্পদ

Liabilities –দায়

Capital – মুলধন

Revenue – আয়

Additional Capital – অতিরিক্ত মূলধন

Expense – ব্যয়

Drawings – উত্তোলন

সংগৃহীত

Download From Google Drive

Download

Download From Yandex

Download

👀 প্রয়োজনীয় মূর্হুতে 🔍খুঁজে পেতে শেয়ার করে রাখুন.! আপনার প্রিয় মানুষটিকে “send as message”এর মাধ্যমে শেয়ার করুন। হয়তো এই গুলো তার অনেক কাজে লাগবে এবং উপকারে আসবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here