চাকরির পরীক্ষায় বাংলা ব্যাকরণ থেকে বারবার আসা গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন উত্তর

0
67

চাকরির পরীক্ষায় বাংলা ব্যাকরণ থেকে বারবার

আসা গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন উত্তর

১) অপমান শব্দের অপ উপসর্গটি যে অর্থেব্যবহৃত – বিপরীত

২) ‘ধ্বনি দিয়ে আট বাঁধা শব্দই ভাষার ইট ’ এই ইটকে বাংলা ভাষায় বলে— বর্ণ

৩) ষড়ঋতু এর সন্ধি বিচ্ছেদ – ষট্ + ঋতু

৪) ইচ্ছা শব্দের বিশেষণ -ঐচ্ছিক

৫) নিশীথ রাতে বাজছে বাঁশী। নিশীথ –বিশেষণ

৬) যা বলা হয়নি – অনুক্ত

৭) অক্ষির সমীপে – সমক্ষ

৮) পুষ্প এন সমার্থক নয় – অবনী

৯) গোঁফ খেজুরে বাগধারার অর্থ – নিতান্তঅলস

১০) রাবনের চিতা – চির অশান্তি

১১) পহেলা বৈশাখ চালু করেন – সম্রাট আকবর

১২) হনন করার ইচ্ছা – জিঘাংসা

১৩) শুদ্ধ বানান – কৃষিজীবী

১৪) আভরন শব্দের অর্থ – অলংকার

১৫) নন্দিত নরকে যাঁর উপন্যাস – হুমায়ুন আহমেদ

১৬) কোর্মা – তুর্কি শব্দ

১৭) তদ্ভব শব্দ – চাঁদ

১৮) অপলাপ শব্দের অর্থ – অস্বীকার

১৯) প্রত্যয়গতভাবে শুদ্ধ – উৎকর্ষ, উৎকৃষ্ট, উৎকৃষ্টতা,

২০) পুণ্যে মতি হোক। পুণ্যে – বিশেষ্য রুপে ব্যবহৃত

২১) সমাস ভাষাকে – সংক্ষেপ করে

২২) তিনি দরিদ্র কিন্তু খুব উদার – যৌগিক বাক্য

২৩) শুদ্ধ বাক্য – সে এমন রুপবতী যেন অপ্সরা

২৪) যে ব্যক্তির দুহাত সমান চলে – সব্যসাচী

২৫) সূর্য এর প্রতিশব্দ – আদিত্য

২৬) মুজিব নগর স্মৃতি সৌধের স্থপতি –তানভীর কবির

২৭) বাঙ্গালীর ইতিহাস – নীহার রঞ্জন রায়

২৮) সৌভাগ্যের বিষয় – একাদশে বৃহষ্পতি

২৯) সংশপ্তক ভাস্কর্যটিরঅবস্থিত –জাহাঙ্গীনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে

৩০) পদ বলতে বোঝায় – বিভক্তিযুক্ত শব্দ বা ধাতু

৩১) হাতের পাঁচ অর্থ – শেষ সম্বল

৩২) সুন্দর মাত্রেরই একটা আকর্ষণ শক্তি আছে। এখানে সুন্দর – বিশেষ্য

৩৩) তুমি না বলেছিলে আগামীকাল আসবে??  এখানে না – হ্যাঁ বাচক

৩৪) যেই তার দর্শন পেলাম, সেই আমরা প্রস্থান করলাম – মিশ্র বাক্য

৩৫) রবীন্দ্রনাথের নাটক -চতুরঙ্গ

৩৬) শাহনামা রচনা করেন – ফেরদৌসী

৩৭) উপসর্গ – অতি

৩৮) ভাষা মানুষের মুখ থেকে কলমের মুখে আসে, উল্টোটা করতে গেলে মুখে শুধু কালি পড়ে – প্রমথ চৌধুরী

৩৯) আমার সন্তান যেন থাকে দুধে ভাতে প্রার্থনা টি – ঈশ্বরী পাটনীর

৪০) কাশবনের কন্যা – উপন্যাস

৪১) যে সমাসের পূর্ব পদ সংখ্যাবাচক এবং সমস্ত পদের দ্বারা সমাহার বোঝায় তাকে বলে- দ্বিগু সমাস

৪২) প্রথম বাংলা থিসরাস বা সমার্থক শব্দের অভিধান সংকলন করেন – অশোক মুখোপাধ্যায়

৪৩) নিরানব্বইয়ের ধাক্কা – সঞ্চয়ের প্রবৃত্তি

৪৪) একুশে ফেব্রুয়ারি প্রথম সংকলনের সম্পাদক – হাসান হাফিজুর রহমান

৪৫) বনফুল – বলাইচাঁদ মুখোপাধ্যায়

৪৬) কষ্টে অতিক্রম করা যায় না যা -দুরতিক্রম্য

৪৭) উৎকর্ষতা যে কারনে অশুদ্ধ – প্রত্যয়জনিত কারনে

৪৮) কোনটি ঠিক – বহিপীর ( নাটক)

৪৯) ভাষা প্রকাশ বাঙ্গালা ব্যাকরণ রচনা করেন- সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়

৫০) ক্রিয়াপদ – সব সময়ে বাক্যে থাকবে

৫১) আহোরণ শব্দের বিপরীত – অবরোহন

৫২) ছাই চাপা আগুন যে অর্থ প্রকাশ করে – অন্তরে বিদ্যমান অথচ বাইরে প্রকাশের অসাধ্য এমন

৫৩) যে ভবিষ্যৎ না ভেবে কাজ করে – অবিমৃষ্যকারী

৫৪) মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক উপন্যাস – আগুনের পরশ মনি

৫৫) কবর কবিতা রচনা করেন – জসীমউদদীন

৫৬) সঠিক বাক্য – মনোরম উদ্যানে ভ্রমণ দূরাকাংখা

৫৭) চৌ হদ্দি – ফারসি+ আরবি

৫৮) সর্বাঙ্গে ব্যাথা ঔষধ দিব কোথা। বাক্যে ঔষধ – কর্মে শূন্য

৫৯) শরৎচন্দ্রের যে উপন্যাস সরকার বাজেয়াপ্ত করে – পথের দাবী

৬০) বেটাইম – ফারসি+ ইংরেজী

৬১) সন্ধি ব্যাকরণের যে অংশে আলোচিত হয় – ধ্বনিতত্ত্ব

৬২) সমুচ্চয়ী অব্যয় ব্যবহৃত হয়েছে – ঢং ঢং ঘন্টা বাজে

৬৩) বিরাম চিহ্ন যথাযথভাবে ব্যবহৃত হয়নি – ঢাকা, ২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২

৬৪) শুদ্ধ বানান – সমীচীন

৬৫) জীবনানন্দ দাশের প্রথম কাব্যগ্রন্ধ – ঝরা পালক

৬৬) কলিঙ্গ পুরষ্কার পান – আবদুল্লাহ আল মুতী

৬৭) নিত্য মূর্ধণ্য ষ যে শব্দে – আষাঢ়

৬৮) সাধু ভাষা অনুপযোগী – নাটকের সংলাপে

৬৯) সাত সাগরের মাঝি কার লেখা – ফররুখ আহমদ

৭০) প্রাতরাশ এর সন্ধি বিচ্ছেদ।- প্রাতঃ+ আশ

৭১) যা বলা হয়নি – অনুক্ত

৭২) যৌগিক শব্দ – গায়ক

৭৩) তৎসম শব্দ – হস্ত

৭৪) নিত্য স্ত্রী বাচক শব্দ – সতীন

৭৫) খাঁটি বাংলা উপসর্গ – ২১ টি

৭৬) বিড়ালের আড়াই পা বাগধারার অর্থ –বেহায়াপনা

৭৭) নজরুল রবীন্দ্রনাথকে উৎসর্গ করেন – সঞ্চিতা

৭৮) ইন্দ্রিয়কে জয় করেছে যে – জিতেন্দ্রিয়

৭৯) অনিষ্ট করতে গিয়ে ভালো হওয়াকে বলে – শাপেবর

৮০) পৃথিবীর সমার্থক শব্দ – অখিল

৮১) পঁথি সাহিত্যের প্রাচীনতম লেখক – সৈয়দ হামজা

৮২) সনেট শব্দটি – ইটালিয়ান

৮৩) সংগীত এর সন্ধি বিচ্ছেদ – সম+ গীত

৮৪) বিভক্তিহীন নাম শব্দকে বলে -প্রাতিপদিক

৮৫) যে সমাসের পূর্ব পদের বিভক্তি লোপ হয় না – অলুক সমাস

৮৬) শুদ্ধ বানান – মুমূর্ষু

৮৭) হুতোম প্যাঁচা যাঁর ছদ্মনাম – কালীপ্রসন্ন সিংহ

৮৮) বাংলা সাহিত্যের প্রথম ইতিহাস গ্রন্থ রচনা করেন – দীনেশ চন্দ্র সেন

৮৯) জসীমউদদীনের প্রথম প্রকাশিত কাব্য গ্রন্থ – রাখালী

৯০) অপাদান কারক – ট্রেন স্টেশন ছেড়েছে

৯১) পশ্চাতে জন্মেছে যে – অনুজ

৯২) হরতাল -গুজরাটি শব্দ

৯৩) শীতার্থ এর সন্ধি বিচ্ছেদ – শীত+ঋত

৯৪) কুলি শব্দের স্ত্রী বাচক – কামিন

৯৫) তুষার শুভ্র – উপমান কর্মধারয় সমাস

৯৬) শৈত্য শব্দের বিশেষণ পদ – শীতার্ত

৯৭) যেহেতু তুমি বেশি নম্বর পেয়েছ, সুতরাং তুমি প্রথম হবে – জটিল বাক্য

৯৮) শুদ্ধ – সাক্ষ্যদান

৯৯) মহাকবি আলাওল নাটকটি রচনা করেন –সিকান্দার আবু জাফর

১০০) রবীন্দ্রনাথ রচিত নাটক – রক্তকরবী।

৯০ টি খুব গুরুত্বপূর্ণ বাংলা সমার্থক শব্দ

➡️অগ্নি ➟ অনল, পাবক, আগুন, দহন, সর্বভূক, শিখা, হুতাশন, বহ্নি, বৈশ্বানর, কৃশানু, বিভাবসু, সর্বশুচি

➡️ অন্ধকার ➟ আঁধার, তমঃ, তমিস্রা, তিমির, আন্ধার, তমস্র, তম

➡️ অখন্ড ➟ সম্পূর্ণ, আস্ত, গোটা, অক্ষত, পূর্ণ, সমগ্র, সমাগ্রিক।

➡️ অবকাশ ➟ সময়, ফূসরত, অবসর, ছুটি, সুযোগ, বিরাম।

➡️ অক্লান্ত ➟ ক্লান্তিহীন, শ্রান্তিহীন, অনলস, নিরলস, অদম্য, উদ্যমী, পরিশ্রমী, অশ্রান্ত।

➡️ অপূর্ব ➟ অদ্ভুত, আশ্চর্য, অলৌকিক, অপরূপ, অভিনব, বিস্ময়কর, আজব, তাজ্জব, চমকপ্রদ, অবাক করা, মনোরম, সুন্দর।

➡️ অক্ষয় ➟ চিরন্তন, ক্ষয়হীন, নাশহীন, অশেষ, অনন্ত, অব্যয়, অবিনাশী, অলয়, অনশ্বর, লয়হীন, অমর, স্থায়ী।

➡️ অঙ্গ ➟ দেহ, শরীর, অবয়ব, গা, গাত্র, বপু, তনু, গতর, কাঠামো, আকৃতি, দেহাংশ।

➡️ অবস্থা ➟ দশা, রকম, প্রকার, গতিক, হাল, স্তিতি, অবস্থান, পরিবেশ, ঘটনা, ব্যাপার, প্রসঙ্গ, হালচাল, স্টাটাস।

➡️ আইন ➟ বিধান, কানুন, বিহিতক, অধিনিয়ম, বিধি, অনুবিধি, উপবিধি, ধারা, বিল, নিয়ম, নিয়মাবলি, বিধিব্যবস্থা।

➡️ আসল ➟ খাঁটি, মূলধন, মৌলিক, মূল, প্রকৃত, যথার্থ।

➡️ আনন্দ ➟ হর্ষ, হরষ, পুলক, সুখ, স্ফূতর্ত, সন্তোষ, পরিতোষ, প্রসন্নতা, আমোদ, প্রমোদ, হাসি, উল্লাস, মজা, তুষ্টি, খুশি, হাসিখুশি।

➡️  আদি ➟ প্রথম, আরম্ভ, অগ্র, পূর্ব, প্রাচীন, মূল।

➡️ অতনু ➟ মদন, অনঙ্গ, কাম, কন্দর্প

➡️  আকাশ ➟ আসমান, অম্বর, গগন, নভোঃ, নভোমণ্ডল, খগ, ব্যোম, অন্তরীক্ষ

➡️  আলোক ➟ আলো, জ্যোতি, কিরণ, দীপ্তি, প্রভা

➡️  ইচ্ছা ➟ আকাঙ্ক্ষা, অভিলাষ, অভিরুচি, অভিপ্রায়, আগ্রহ, স্পৃহা, কামনা, বাসনা, বাঞ্চা, ঈপ্সা, ঈহা

➡️  আল্লাহ্ ➟ আল্লাহ্ ,ঈশ্বর, খোদা, ঈশ, ইলাহি, সৃষ্টিকর্তা, বিশ্বপতি, পরমাত্মা, জগদীশ্বর, জগদীশ, জগন্নাথ, আদিনাথ, অমরেশ, পরেশ, লোকনাথ, পরমপুরুষ, পরমপিতা, করুণাময়, দয়াময়, বিধি, পরমেশ, জীবিতেশ, মালিক , ভগবান, ধাতা।

➡️ উঁচু ➟ উচ্চ, তুঙ্গ, সমুন্নত, আকাশ-ছোঁয়া, গগনচূম্বী, অভ্রভেদী, অত্যুচ্চ, সুউচ্চ।

➡️ উদাহরণ ➟ দৃষ্টান্ত, নিদর্শন, নজির, নমুনা, উল্লেখ, অতিষ্ঠা।

➡️  উত্তম ➟ প্রকৃষ্ট, শ্রেষ্ঠ, সেরা, ভালো, অগ্রণী, অতুল।

➡️ উত্তর ➟ জবাব, প্রতিবাক্য, মীমাংশা, সাড়া, সিদ্ধান্ত।

➡️ একতা ➟ ঐক্য, মিলন, একত্ব, অভেদ, সংহতি, ঐক্যবদ্ধ, একাত্মতা, একীভাব।

➡️ কপাল ➟ ললাট, ভাল, ভাগ্য, অদৃষ্ট, নিয়তি, অলিক

➡️ কোকিল ➟ পরভৃত, পিক, বসন্তদূত

➡️ কষ্ট ➟ মেহনত, যন্ত্রনা, ক্লেশ, আয়াস, পরিশ্রম, দু:খ।

➡️ কুল ➟ বংশ, গোত্র, জাতি, বর্ণ, গণ, সমূহ, অনেক, যূথ, জাত, শ্রেণী, ইত্যাদি।

➡️ খ্যাতি ➟ যশ, প্রসিদ্ধি, সুখ্যাতি, সুনাম, নাম, সুবাদ, প্রখ্যাতি, সুযশ, বিখ্যাতি, নামযশ, নামডাক, প্রখ্যা, প্রচার, হাতযশ, প্রতিপত্তি, প্রতিষ্ঠা।

➡️ কন্যা ➟ মেয়ে, দুহিতা, দুলালী, আত্মজা, নন্দিনী, পুত্রী, সূতা, তনয়া

➡️ গরু ➟ গো, গাভী, ধেনু

➡️  ঘোড়া ➟ অশ্ব, ঘোটক, তুরগ, বাজি, হয়, তুরঙ্গ, তুরঙ্গম

➡️ মেঘ ➟ ঘন, অভ্র, নিবিড়, জলধর, গাঢ়, জমাট, গভীর।

➡️ চাঁদ ➟ সুধাকর, শশী, শশধর, দ্বিজরাজ, বিধু, সোম, নিশাপতি, সুধানিধি, রাকেশ, সুধাময়, ইন্দু, তারানাথ।

➡️ চতুর ➟ বুদ্ধিমান, নিপুণ, কুশল, ধূর্ত, ঠগ, চালাক, সপ্রতিভ।

➡️ ঘর ➟ গৃহ, আলয়, নিবাস, আবাস, আশ্রয়, নিলয়, নিকেতন, ভবন, সদন, বাড়ি, বাটী, বাসস্থান

➡️ চক্ষু ➟ চোখ, আঁখি, অক্ষি, লোচন, নেত্র, নয়ন, দর্শনেন্দ্রিয়

➡️ চন্দ্র ➟ চাঁদ, চন্দ্রমা, শশী, শশধর, শশাঙ্ক, শুধাংশু, হিমাংশু, সুধাকর, সুধাংশু, হিমাংশু, সোম, বিধু, ইন্দু, নিশাকর, নিশাকান্ত, মৃগাঙ্ক, রজনীকান্ত

➡️ চুল ➟ চিকুর, কুন্তল, কেশ, অলক,

➡️ জননী ➟ মা, মাতা, প্রসূতি, গর্ভধারিণী, জন্মদাত্রী,

➡️ দিন ➟ দিবা, দিবস, দিনমান

➡️ দেবতা ➟ অমর, দেব, সুর, ত্রিদশ, অমর, অজর, ঠাকুর

➡️ দ্বন্দ্ব ➟ বিরোধ, ঝগড়া, কলহ, বিবাদ, যুদ্ধ

➡️ তীর ➟ কূল, তট, পাড়, সৈকত, পুলিন, ধার, কিনারা

➡️ নারী ➟ রমণী, কামিনী, মহিলা, স্ত্রী, অবলা, স্ত্রীলোক, অঙ্গনা, ভাসিনী, ললনা, কান্তা, পত্নী, সীমন্তনী

➡️ নদী ➟ তটিনী, তরঙ্গিনী, প্রবাহিনী, শৈবালিনী, স্রোতস্বতী, স্রোতস্বিনী, গাঙ, স্বরিৎ, নির্ঝরিনী, কল্লোলিনী

➡️ নৌকা ➟ নাও, তরণী, জলযান, তরী

➡️ পণ্ডিত ➟ বিদ্বান, জ্ঞানী, বিজ্ঞ, অভিজ্ঞ

➡️ পদ্ম ➟ কমল, উৎপল, সরোজ, পঙ্কজ, নলিন, শতদল, রাজীব, কোকনদ, কুবলয়, পুণ্ডরীক, অরবিন্দ, ইন্দীবর, পুষ্কর, তামরস, মৃণাল, সরসিজ, কুমুদ

➡️ পৃথিবী ➟ ধরা, ধরিত্রী, ধরণী, অবনী, মেদিনী, পৃ, পৃথ্বী, ভূ, বসুধা, বসুন্ধরা, জাহান, জগৎ, দুনিয়া, ভূবন, বিশ্ব, ভূ-মণ্ডল

➡️ পর্বত ➟ শৈল, গিরি, পাহাড়, অচল, অটল, অদ্রি, চূড়া, ভূধর, নগ, শৃঙ্গী, শৃঙ্গধর, মহীধর, মহীন্দ্র

➡️ পানি ➟ জল, বারি, সলিল, উদক, অম্বু, নীর, পয়ঃ, তোয়, অপ, জীবন, পানীয়

➡️ পুত্র ➟ তনয়, সুত, আত্মজ, ছেলে, নন্দন

➡️ পত্নী ➟ জায়া, ভার্যা, ভামিনী, স্ত্রী, অর্ধাঙ্গী, সহধর্মিণী, জীবন সাথী, বউ, দারা, বনিতা, কলত্র, গৃহিণী, গিন্নী

➡️ পাখি ➟ পক্ষী, খেচর, বিহগ, বিহঙ্গ, বিহঙ্গম, পতত্রী, খগ, অণ্ডজ, শকুন্ত, দ্বিজ

➡️ ফুল ➟ পুষ্প, কুসুম, প্রসূন, রঙ্গন

➡️ বৃক্ষ ➟ গাছ, শাখী, বিটপী, অটবি, দ্রুম, মহীরূহ, তরু, পাদপ

➡️ বন ➟ অরণ্য, জঙ্গল, কানন, বিপিণ, কুঞ্জ, কান্তার, অটবি, বনানী, গহন

➡️ বায়ু ➟ বাতাস, অনিল, পবন, হাওয়া, সমীর, সমীরণ, মারুত, গন্ধবহ

➡️ বিদ্যুত ➟ বিজলী, ত্বড়িৎ, ক্ষণপ্রভা, সৌদামিনী, চপলা, চঞ্চলা, দামিনী, অচিরপ্রভা, শম্পা

➡️ মানুষ ➟ মানব, মনুষ্য, লোক, জন, নৃ, নর,

➡️ মাটি ➟ ক্ষিতি, মৃত্তিকা,

➡️ দখল ➟ অধিকার, আয়ত্ত, জ্ঞান, কতৃত্ব, অধীনতা, পটুতা।

➡️ নারী ➟ রমণী, রামা, বামা, অবলা, মহিলা, স্ত্রী, মেয়ে, মেয়েমানুষ, ললনা, মানবী, মানবিকা, কামিনী, আওরত,

জেনানা, যোষা, জনি, বালা, বনিতা, ভামিনী, শর্বরী।

➡️ বাতাস ➟ বায়ু, পবন, সমীর, অনিল, মারুত, বাত, বায়, আশুগ, পবমান, সদাগতি, শব্দবহ, অগ্নিশখ, বহ্নিসখ, হাওয়া।

➡️ মৃত্যু ➟ মরা, ইন্তেকাল, বিনাশ, মরণ, নাশ, নিধন, নিপাত, প্রয়ান, লোকান্তরপ্রাপ্তি, চিরবিদায়, প্রাণত্যাগ, জীবননাশ, দেহান্ত, লোকান্তর, , মারা যাওয়া, পটল তোলা, মহাপ্রয়াণ।

➡️ সমুদ্র ➟ সাগর, সায়ব, অর্ণব, সিন্ধু, দরিয়া, জলধি, পাথার, পারাবার, প্রচেতা, অকূল, জলধর, নদীকান্ত, নীরধি, তোয়াধি, পয়োধি, বারিধর, বারীন্দ্র, ইরাবান, দ্বীপী।

➡️ স্বর্ণ ➟ সোনা, কাঞ্চন, কনক, হেম, হিরণ্য, মহাধাতু, গোল্ড।

➡️ সম ➟ সমান, তুল্য, সদৃশ, যুদ্ন, অনুরূপ।

➡️ দিন ➟ দিবস, দিবা, অহ, বার, রোজ, বাসর, দিনরাত্রি, দিনরজনী, সাবন, অষ্টপ্রহর, আটপ্রহর।

➡️ নিদ্রা ➟ ঘুম, তন্দ্রা, নিদ, সুপ্তি, গাঢ়ঘুম, নিষুপ্তি।

➡️ ছাত্র ➟ শিষ্য, শিক্ষানবিশ, পড়ুয়া।

➡️ জটিল ➟ জড়ানো, কঠিন, শক্ত, খটমট, জটাযুক্ত।

➡️ ধরা ➟ পৃথিবী, ধারণ করা, হাত দেয়া, ছোঁয়া, স্পশর্, ধরণি, ধরিত্রী, পাকড়ানো।

➡️ কবুতর ➟ পারাবত, কপোত, পায়রা, নোটন, লোটন, প্রাসাদকুক্কুট।

➡️ দক্ষ ➟ নিপুণ, পটু, পারদশী, কর্মঠ, সুনিপুন, কামিল।

➡️ রাত্রি ➟ রাত, রাত্তির, নিশি, নিশীথ, রাত, রজনী, যামিনী, যামী, যামিকা, শমনী, বিভাবরী, ক্ষণদা, নক্ত, তামসী, অসুরা।

➡️ মেঘ ➟ জলধর, জীমৃত, বারিদ, নীরদ, পয়োদ, ঘন, অম্বুদ, তায়দ, পয়োধর, বলাহক, তোয়ধর

➡️ রাজা ➟ নরপতি, নৃপতি, ভূপতি, বাদশাহ

➡️ রাত ➟ রাত্রি, রজনী, নিশি, যামিনী, শর্বরী, বিভাবরী, নিশা, নিশিথিনী, ক্ষণদা, ত্রিযামা

➡️ শরীর ➟ দেহ, বিগ্রহ, কায়, কলেবর, গা, গাত্র, তনু, অঙ্গ, অবয়ব

➡️ সর্প ➟ সাপ, অহি, আশীবিষ, উরহ, নাগ, নাগিনী, ভুজঙ্গ, ভুজগ, ভুজঙ্গম, সরীসৃপ, ফণী, ফণাধর, বিষধর, বায়ুভুক

➡️ স্ত্রী ➟ পত্নী, জায়া, সহধর্মিণী, ভার্যা, বেগম, বিবি, বধূ,

➡️ স্বর্ণ ➟ সোনা, কনক, কাঞ্চন, সুবর্ণ, হেম, হিরণ্য, হিরণ

➡️ স্বর্গ ➟ দেবলোক, দ্যুলোক, বেহেশত, সুরলোক, দ্যু, ত্রিদশালয়, ইন্দ্রালয়, দিব্যলোক, জান্নাত

➡️ সাহসী ➟ অভীক, নির্ভীক,

➡️ সাগর ➟ সমুদ্র, সিন্ধু, অর্ণব, জলধি, জলনিধি, বারিধি, পারাবার, রত্নাকর, বরুণ, দরিয়া, পারাবার, বারীন্দ্র, পাথার, বারীশ, পয়োনিধি, তোয়ধি, বারিনিধি, অম্বুধি

➡️ সূর্য ➟ রবি, সবিতা, দিবাকর, দিনমনি, দিননাথ, দিবাবসু, অর্ক, ভানু, তপন, আদিত্য, ভাস্কর, মার্তণ্ড, অংশু, প্রভাকর, কিরণমালী, অরুণ, মিহির, পুষা, সূর, মিত্র, দিনপতি, বালকি, অর্ষমা

➡️ হাত ➟ কর, বাহু, ভুজ, হস্ত, পাণি

➡️ হস্তী ➟ হাতি, করী, দন্তী, মাতঙ্গ, গজ, ঐরাবত, দ্বিপ, দ্বিরদ, বারণ, কুঞ্জর, নাগ

➡️ লাল ➟ লোহিত, রক্তবর্ণ

144 টি বাগধারা, এক্সক্লুসিভ:-

  1. অগত্যা মধুসূদন – অনন্যোপায় হয়ে।
  2. অজগর বৃত্তি – আলসেমি।
  3. অপোগণ্ড – অকর্মণ্য, অপ্রাপ্ত বয়স্ক, নাবালক।
  4. অবরে সবরে – কালে -ভদ্রে।
  5. অজগর বৃত্তি – আলসেমি।
  6. অশ্বমেধ যজ্ঞ – বিপুল আয়োজন।
  7. অচলায়তন – গোরামিপূর্ণ
  8. অষ্টরম্ভা – কাঁচকলা, ফাঁকি, কিছুই না।
  9. অক্ষয় বট – প্রাচীন ব্যক্তি।
  10. অকাল কুষ্মাণ্ড – অপদার্থ।
  11. অকালের বাদলা -অপ্রত্যাশিত বাধা।
  12. অক্ষরে অক্ষরে -সম্পূর্ণভাবে।
  13. অষ্টবজ্র সম্মিলন -প্রতিভাবান ব্যক্তিদের একত্র সমাবেশ
  14. অলক্ষ্মীর দশা -দারিদ্র্য
  15. অক্ষয়ভাণ্ডার -যে ভাণ্ডারের ধন কখনো ফুরায় না
  16. অগ্নিগর্ভ -বলিষ্ঠ
  17. অঞ্চলের নিধি – যে সম্পদ আঁচলে ঢেকে সুরক্ষিত রাখতে হয়/সনত্মান
  18. অন্ধিসন্ধি -ফাঁকফোকর/গোপন তথ্য
  19. আঠারো মাসে বছর – দীর্ঘসূত্রিতা।
  20. আঁটকুড়ো – নিঃসনত্মান।
  21. আমড়া কাঠের ঢেঁকি-অকেজো লোক/অকর্মণ্য।
  22. আসরে নামা -আবির্ভূত হওয়া।
  23. আধা খেঁচড়া -বিশৃঙ্খলা
  24. আঁচা-আঁচি -পরস্পরের মনের ভাব
  25. আগলদার -জমির ফসল আগলানোর বা পাহারা দেয়ার জন্য নিযুক্ত লোক
  26. আদিখ্যেতা – ন্যাকামি
  27. আস্ত কেউটে – অত্যন্ত বিপজ্জনক লোক
  28. ইলশে গুঁড়ি – গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি।
  29. ইয়ারবকসি – বন্ধুবান্ধব
  30. ইল্লতে কাণ্ড – নোংরা ব্যাপার / নোংরা কাণ্ড
  31. ইতুনিদকুঁড়ে – অলস: দীর্ঘসূত্রীতা
  32. উলুখাগড়া – গুরুত্বহীন লোক।
  33. উজানের কৈ – সহজলভ্য।
  34. উপোসি ছারপোকা – অভাবগ্রস্থ লোক।
  35. উপরোধের ঢেঁকি গেলা – অন্যায় আবদার করা
  36. উদোমারা – বোকা।
  37. উটকো লোক – অচেনা লোক/হঠাৎ অবাঞ্ছিতভাবে এসে
  38. ঊনকোটি চোষট্টি – প্রায় সম্পূর্ণ।
  39. ঊনপাঁজুরে – অপদার্থ।
  40. ঊরুস্তম্ভ – ফোঁড়া জাতীয় রোগ
  41. ঊর্মিমালী – সমুদ্র
  42. এলেবেলে – নিকৃষ্ট।
  43. এক ছাঁচে ঢালা – সাদৃশ্য।
  44. একাদশ বৃহস্পতি – মহাসৌভাগ্য/ সৌভাগ্যের লক্ষণ।
  45. একা দোকা – নিঃসঙ্গ
  46. ওষুধে ধরা – প্রার্থিত ফল পাওয়া।
  47. ওষুধ করা – গুণ করা।
  48. ওষুধ পড়া – সঠিক ব্যবস্থা নেওয়া।
  49. কচ্ছপের কামড় – যা সহজে ছাড়ে না।
  50. কলমি কাপ্তেন – দরিদ্র কিন্তু বিলাসী।
  51. কাক ভূষণ্ডি – সম্পূর্ণ ভেজা।
  52. কাটনার কড়ি – উপার্জন সামান্য।
  53. কায়েতের ঘরের ঢেঁকি – অপদার্থ লোক।
  54. কিম্ভূতকিমার – অদ্ভুত ও কুৎসিত।
  55. কাগুজে বাঘ – মিথ্যা জুজু।
  56. কাঁঠালের আমসত্ত্ব – অলীক বস্তু।
  57. কুমিরের সান্নিপাত – অসম্ভব ব্যাপার।
  58. কূপমণ্ডুক – ঘরকুনো / সীমাবদ্ধ জ্ঞান সম্পন্ন।
  59. কেউ কেটা – সামান্য।
  60. কেঁচো গণ্ডূষ – গোড়া থেকে শুরু।
  61. কলির সন্ধ্যা – দৌরাত্ম্যের শুরু।
  62. কূর্ম অবতার – অলস।
  63. কুনো ব্যাঙ – সীমিত জ্ঞান
  64. কুম্ভীরাশ্রু – লোক দেখানো কান্না/নকল সমবেদনা
  65. খামকাজ – ভুলকাজ।
  66. খাবি খাওয়া – ছটফট করা।
  67. খুঁটে খাওয়া – ¯ সাবলম্ভি হওয়া।
  68. গয়ংগচ্ছ – ঢিলেমি।
  69. গোকুলের ষাঁড় – স্বেচ্ছাচারী
  70. গণ্ডগ্রাম – বড়গ্রাম।
  71. গোঁয়ার গোবিন্দ – কাণ্ডজ্ঞানহীন মানুষ
  72. গলগ্রহ – পরের বোঝা হয়ে থাকা
  73. ঘাড়ে গর্দানে – অত্যনত্ম মোটা।
  74. ঘাড়ার কামড় – দৃঢ় পণ।
  75. ঘটিরাম – অপদার্থ
  76. চক্ষুদান করা – চুরি করা।
  77. চডুই পাখির প্রাণ – ক্ষীণজীবী লোক।
  78. চতুর্ভুজ হওয়া – উৎফুল্ল হওয়া।
  79. চাঁদের হাট – ধনেজনে পরিপূর্ণ সংসার।
  80. চাঁদ-কপালে – ভাগ্যবান।
  81. চোখের চামড়া / পর্দা – চক্ষুলজ্জা।
  82. চক্ষের পুতলি – আদরের ধন।
  83. চর্বিত চর্বণ – পুনরাবৃত্তি।
  84. ঢাকের বাঁয়া – অপ্রয়োজনীয়।
  85. চোরাবালি – প্রচ্ছন্ন আকর্ষণ
  86. ছামনি নাড়া – দৃষ্টি বিনিময়।
  87. ছাঁদনা তলা – বিবাহের মণ্ডপ।
  88. ছক্কা-পাঞ্জা – ইতঃস্তত করা/ বড় বড় কথা বলা।
  89. ছাঁদাবাঁধা – পুজোরপর বা ভোজবাড়ি থেকে ফেরার সময় চাঁদর বা গামছায় খাবার বেঁধে নেয়া
  90. জগদ্দল পাথর – গুরুভার।
  91. জেলঘুঘু – যে ব্যক্তি বারবার জেল খাটে
  92. ঝাঁকের কৈ – এক দলভুক্ত।
  93. ঝাড়ে বংশে – সবশুদ্ধ।
  94. টুপ ভুজঙ্গ – নেশায় বিভোর।
  95. টেণ্ডাই মেণ্ডাই – আস্ফালন।
  96. টেঁকে গোঁজা – আত্মসাৎ করা।
  97. ঠাটঠমক – হাবভাব, চালচলন
  98. ডুমুরের ফুল – অদর্শনীয়।
  99. ডামাডোল – গোলযোগ।
  100. ডাকাবুকো – দুঃসাহসী
  101. ঢেঁকির কুমির – অপদার্থ।
  102. ঢেঁকি অবতার – নির্বোধ লোক।
  103. ঢেঁকির কচকচি – বিরক্তিকর কথা।
  104. ঢাকের কাঠি – তোষামুদে।
  105. ঢাকের বায়া – অপ্রয়োজনীয়।
  106. ঢুলুঢুলু – তন্দ্রালুতা
  107. তামার বিষ – অর্থের কুপ্রভাব।
  108. নবমীর পাঁঠা – প্রাণ ভয়ে ভীত ব্যক্তি।
  109. তাসের ঘর – ক্ষণস্থায়ী।
  110. তেল নুন লকড়ি – মৌলিক প্রয়োজন।
  111. তীর্থের কাক – প্রতীক্ষারত।
  112. তুর্কি নাচন – নাজেহাল অবস্থা।
  113. তুলসী বনের বাঘ – সুবেশে দুর্বৃত্ত।
  114. ত্রাহি ত্রাহি – পরিত্রাণ কর বলে চিৎকার
  115. তরবেতর – নানারকম
  116. থাউকি বেলা – বিকালবেলা
  117. দড়ি কলসি – আত্মহত্যার উপায়।
  118. দোজবরে – দ্বিতীয়বার যে ছেলে বিয়ে করতে চায়।
  119. দড়বড়ে – তাড়াহুড়ো
  120. দবকানো – ওপরে ভার চাপানো/উপর থেকে চাপ দেয়া
  121. দশবাই চণ্ডী – অত্যনত্ম রাগী স্ত্রীলোক
  122. দাঁদুড়ে – অত্যন্ত/দুর্দান্ত
  123. দাতাকর্ণ – অত্যন্ত উদার ও দানশীল
  124. দায়-দৈব – ছোট বড় সমস্যা
  125. দেবদ্বিজ মানা – ধর্মে বিশ্বাস থাকা
  126. দোপড়া – এক জায়গায় বিয়ে স্থির হওয়ার পরে কিংবা
  127. দক্ষযজ্ঞ ব্যাপার – বিরাট সমারোহ
  128. ধর্মের কল – সত্য।
  129. ধামাধরা – তোষামোদকারী।
  130. ধোপে টেকা – পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া।
  131. ধোপার গাধা – পরের জন্য খাটা।
  132. ধর্মের ষাঁড় – যথেচ্ছাচারী।
  133. ধিনিকেষ্ট – দায়িত্বপালনহীন ব্যক্তি
  134. ধোঁকার টাটি – প্রতারণার উপরের আবরণ
  135. ধোপার গাধা – ভারবাহী
  136. ধড়িবাজ – ধূর্ত ও ফন্দিবাজ
  137. ধোপার ভাঁড়ার – প্রচুর জিনিসপত্র যা ব্যবহার করা যাবে না
  138. নয়-দুয়ারি – দ্বারে দ্বারে।
  139. নারদের ঢেঁকি – বিবাদের বিষয়।
  140. নগদ নারায়ণ – নগদ অর্থ।
  141. নিরানবক্ষইয়ের ধাক্কা – সঞ্চয়ের প্রবৃত্তি, টাকা জমানোর প্রবৃত্তি।
  142. ননির পুতুল – সহজে কাতর, আদরে দুলাল।
  143. নন্দভৃঙ্গী – অত্যন্ত আদুরে, অকর্মণ্য
  144. ননদী ভুলী – কুকর্মের সঙ্গী

Download From Google Drive

Download

Download From Yandex

Download

👀 প্রয়োজনীয় মূর্হুতে 🔍খুঁজে পেতে শেয়ার করে রাখুন.! আপনার প্রিয় মানুষটিকে “send as message”এর মাধ্যমে শেয়ার করুন। হয়তো এই গুলো তার অনেক কাজে লাগবে এবং উপকারে আসবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here